টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

ছত্রধর মাহাতোকে হেফাজত নিতে চেয়েছিল NIA, তড়িঘড়ি হাসপাতালে ভরতি হলেন তৃণমূল নেতা

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ রাষ্ট্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (National Investigation Agency) তৃণমূল (All India Trinamool Congress) নেতা ছত্রধর মাহাতোকে (chhatradhar mahato) হেফাজত নেওয়ার জন্য আবেদন জানাল। জানিয়ে দিই, সিপিআইএম (CPIM) নেতা প্রবীর মাহাতোর খুনে তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সদস্য ছত্রধরকে হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছে NIA। শুক্রবার কলকাতার বিশেষ আদালতে ছত্রধরকে হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানায় NIA-এর আইনজীবী। NIA এর আবেদনের পরে শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন ছত্রধর মাহাতো। তড়িঘড়ি ওনাকে বাইপাসের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়।

২০০৯ সালে খুন হওয়া সিপিআইএম নেতা প্রবীর মাহাতোর মামলায় জেরা করার জন্য ছত্রধরকে চারদিনের হেফাজতে চায় এনআইএ। ১১ বছরের পুরনো মামলায় আজ কলকাতার বিশেষ আদালতে শুনানি ছিল। এদিন আদলতে সশরীরে উপস্থিত ছিলেন ছত্রধর। মোট ৩১ জন অভিযুক্তকে আদালতে হাজির থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এরমধ্যে ২৭ জন আজকে হাজিরা দেয়।

জানা গিয়েছে যে, এদিন গায়ে জ্বর নিয়ে আদালতে প্রবেশ করেছিলেন তৃণমূল নেতা ছত্রধর মাহাতো। এরপর তিনি শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন, এবং ওনাকে তড়িঘড়ি বাইপাসের ধারে একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ওনার নানাবিধ পরীক্ষা চলছে বলে জানা গিয়েছে।

শুধু সিপিআইএম নেতা প্রবীর মাহাতোর খুনেই অভিযুক্ত নন তিনি। এছাড়াও ওনার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছিলেন উনি। এরপর গত জুলাই মাসে ওনাকে দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জী। জ্ঞানেশ্বরী এক্সপ্রেস নাশকতা, রাজধানী এক্সপ্রেস অপহরণ, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের কনভয়ে বিস্ফোরণ এবং অনেক অপরাধীক কাজের সাথে লিপ্ত ছিলেন তিনি।

Back to top button