টাইমলাইনরাজনীতিআন্তর্জাতিক

শুধু গুলি নয়, গাড়ি চালিয়ে দানিশের মাথা কুচলে দিয়েছিল তালিবানরা, সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ কয়েকদিন আগেই আফগানিস্তানে তালিবানদের হাতে নিহত হন ভারতীয় পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী চিত্রসাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকী (Danish Siddiqui)। বাংলাদেশের রোহিঙ্গা থেকে শুরু করে, সিএএ এনআরসি বিরোধী আন্দোলন, করোনা-কালীন কুম্ভ মেলার ছবি, করোনায় মৃত শব পোড়ানো সমস্ত দৃশ্যই ক্যামেরাবন্দি করেছিলেন তিনি। যার জেরে যথেষ্ট বিতর্কের মুখেও পড়তে হয় তাকে। আপাতত রয়টার্সের হয়ে আফগানিস্তানে সেনার সঙ্গেই ছিলেন এই চিত্র সাংবাদিক। যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পাঠাচ্ছিলেন একাধিক রিপোর্ট।

এখনও পর্যন্ত জানা গিয়েছিল, তালিবানদের গুলিতে মৃত্যু হয়েছিল তার। তবে এবার এই মৃত্যু সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আনলেন আফগানিস্তানের কমান্ডার বিলাল আহমেদ, জানা গিয়েছে শুধুমাত্র দানিশকে গুলি করেই থেমে থাকেনি তালিবানরা। তার মৃতদেহের সঙ্গেও বর্বর আচরণ করেছে তারা। দানিশ মারা যাবার পর তারা জানতে পারে উনি একজন ভারতীয়। তারপরেই তার মাথার ওপর গাড়ি চালিয়ে দেওয়া হয়। ছিন্নভিন্ন করে দেওয়া হয় তার মৃতদেহ।

জানা গিয়েছে, আফগানিস্তানের যুদ্ধক্ষেত্রে থাকার সময় দানিশ একাধিক স্টোরি কভার করেছিলেন রয়টার্সের হয়ে। একজন আফগানিস্তানি পুলিশ কিভাবে একটি গ্রামকে তালিবানদের হাত থেকে রক্ষা করছেন সেই দৃশ্যও তুলে ধরেছিলেন তিনি। স্থানীয় সাংবাদিকদের সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী, কিছুদিন আগেই কান্দাহারের এই বোলডাক এলাকায় আফগান সেনাদের সঙ্গে খবর সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন দানিশ। এই সময় একটি রকেট তাদের গাড়ি লক্ষ্য করে ছুটে আসে। কোনওভাবে বেঁচে যান ওই চিত্রসাংবাদিক এবং ওই দৃশ্য ক্যামেরাবন্দিও করেন তিনি। অনেকের মতে এরপরেই তালিবানদের টার্গেট হয়ে পড়েন দানিশ।

দানিশের সঙ্গে আরেক আফগান স্পেশাল ফোর্স কমান্ডার সিদ্দিক কাইজারকেও হত্যা করেছে তালিবানরা। স্থানীয় সাংবাদিকদের মতে, দানিশ এবং কাইজার একই গাড়িতে ছিলেন, ঠিক সেসময় হামলা চালায় তালিবানরা। তাদের গাড়ি ঘিরে ধরা হয় এবং তাদের নামতে বাধ্য করা হয়। তালিবানরা অবশ্য এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে। তাদের মতে, দানিশের উপর কারা গুলি চালিয়েছে সে সম্পর্কে তাদের কাছে কোন খবর নেই। এও জানানো হয়েছে দানিশ যে সাংবাদিক একথা জানার পরেও দুঃখ প্রকাশ করেছে তারা। অনেক সাংবাদিক যুদ্ধক্ষেত্রে তাদেরকে কোন খবর না দিয়ে চলে আসছে। তারা খবর পেলে এ বিষয়ে সুরক্ষার ভার গ্রহণ করবে।

Related Articles

Back to top button