টাইমলাইনভারত

পিএমসি ব্যাঙ্কে জমানো টাকা তুলতে না পেরে চিকিত্সার অভাবে মৃত্যু হল এক ব্যক্তির, ক্ষুব্ধ পরিবারের সদস্যরা

বাংলা হান্ট ডেস্ক : পিএনবির পর পিএমসি ব্যাংকের আর্থিক কেলেঙ্কারিতে সমস্যার মুখে পড়েছেন কয়েক লক্ষ গ্রাহক। পিএনবি ব্যাংকের ন হাজার কোটি টাকা কেলেঙ্কারিতে অনেক গ্রাহক তাদের সঞ্চিত টাকার পুরোটা ফেরত পাননি। যদিও পিএমসি ব্যাংকের ক্ষেত্রে তেমনটা হয়নি কিন্তু এখনও অবধি নিজেদের গচ্ছিত টাকা তুলতে পারছেন না গ্রাহকরা। এবার টাকা তুলতে না পেরে চিকিত্সার অভাবে মৃত্যু হল এক ব্যক্তির। যদিও এই প্রথমবার নয় এর আগে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে দুই জন হৃদরোগ এবং একজন আত্মহত্যা করেছেন, যেহেতু রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফ থেকে একসঙ্গে মোটা টাকা তুলতে পারবেন না গ্রাহক এমনটাই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তাই হার্ট সার্জারির জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ তুলতে না পেরে মৃত্যু হল অশীতিপর মুরলীধর ধরার।

মুরলীধরের পরিবার সূত্রের খবর, তার আশি লক্ষ টাকা জমা রয়েছে পিএমসি ব্যাংকে, কিন্তু টাকা তোলার অভাবে চিকিত্সা করতে সক্ষম হয়নি মুরলীধরের পরিবারের সদস্যরা। যেহেতু পিএমসি ব্যাংকের তরফ থেকে টাকা তোলার সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে তাই মাত্র চল্লিশ হাজার টাকার বেশি তুলতে পারবেন না গ্রাহকরা, মুরলীধর বাবু গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিত্সকরা তাঁর হার্ট সার্জারির পরামর্শ দেন। কিন্তু হার্ট সার্জারির জন্য যে পরিমাণ টাকা তোলার প্রয়োজন তা তুলতে পারেননি হলধরবাবুর পরিবারের সদস্যরা। তার জেরে শুক্রবার নিজের বাড়িতেই মারা যান তিনি।

মুরলীধর বাবু মৃত্যুর পিছনে পিএমসি ব্যাংকের আর্থিক কেলেঙ্কারি কেই দায়ী করছেন তাঁর পরিবারের লোকজনেরা। উল্লেখ্য পাঞ্জাব ন্যাশনাল সমবায় ব্যাংকের বিরুদ্ধে 4355 কোটি টাকা আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। বিভিন্ন ভাবে এইচডিআইএল কে মোটা অংকের ঋণ দিয়ে কার্যত দেউলিয়া হতে বসেছিল পাঞ্জাব ন্যাশনাল সমবায় ব্যাংক, হিসেব নিকেশ খতিয়ে দেখতে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নজরে আসে বিষয়টি এবং তখনই তদন্ত করে ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর চেয়ারম্যানকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পিএমসি ব্যাংকের কেলেঙ্কারি প্রকাশ্যে আসতেই আমানতকারীরা চিন্তিত হয়ে পড়ে, আদৌ কি টাকা ফেরত পাবেন? এই প্রশ্নই এখন আমানতকারীদের মধ্যে ঘোরা ফেরা করছে। ব্যাংক কেলেঙ্কারির খবর প্রকাশ্যে আসতেই তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। এর পর আবারও একটি মৃত্যুর ঘটনা। তা হলে কি পিএনবি ব্যাংকের মতোই অবস্থা হবে? এমন প্রশ্নই উঠছে বিভিন্ন মহল থেকে।

Back to top button