fbpx
আন্তর্জাতিকটাইমলাইন

দুবাইতে ফেঁসে থাকা বিজনেসম্যানের অফার: পরিবারের কাছে পৌঁছে দিলে ১০ লক্ষ টাকা দিতে রাজি

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ দুবাইয়ে (Dubai) আটকে পড়া পরিবারকে কেরালায় (Kerala) ফিরিয়ে আনার জন্য ১০ লক্ষ টাকা দেওয়ার অফার- আরব ব্যবসায়ীর। দুবাইতে ফেঁসে থাকা বিজনেসম্যানের অফার দিলেন পরিবারের কাছে পৌঁছে দিলে ১০ লক্ষ টাকা দিতে রাজি কেরালার একজন আরব ব্যবসায়ী লকডাউনে আটকা পড়া ছেলেমেয়ে ও স্ত্রীকে দেখার জন্য দুর্দান্ত অফার দিয়েছেন। তিনি এই প্রস্তাবটি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টেও দিয়েছেন। এই অফারটি ১২ ই মে পর্যন্ত কার্যকর রয়েছে। এর পরে অফারটি শেষ হবে। ব্যবসায়ী ব্যক্তি নিজেই এটি পোস্ট করেছেন। সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাসায়নিক ব্যবসায় ব্যবসায়ীরা জড়িত। তার স্ত্রীকে লকডাউনে (lockdown) দেখার জন্য একবার হেলিকপ্টারের সাহায্য নেওয়া উচিত। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তাকে অনুমতি দেয়নি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাসায়নিক ব্যবসায়ীকে আর শ্রীকুমার তাকে বিমানের জন্য হেলিকপ্টার ভাড়া করছিলেন। ইতিমধ্যে একটি এয়ারলাইন সংস্থার সাথে প্রায় ১০ লক্ষ টাকার চুক্তি সই করেছে। তবে কর্তৃপক্ষ তাকে তা করতে বাধা দেয়। হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তার সমস্ত চেষ্টার পরেও ব্যর্থ হয়ে তিনি ফেসবুকে একটি বার্তা পোস্ট করেছেন ২ মে। একটি অস্বাভাবিক ঘোষণা পোস্ট করেছেন। তিনি লিখেছেন – যে ব্যক্তি আমার পরিবারকে কেরালায় ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করবে, সে ১০ লক্ষ টাকার পুরষ্কারের দেব। এই প্রস্তাব ১২ মে মধ্যরাত পর্যন্ত কার্যকর। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে বাচ্চাদের কেবল স্ত্রীর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া উচিত সরকারী অনুমতি নিয়েই। কোন অন্যায় উপায় কাজ করবে না।

তিনি লিখেছেন – আমার বড় ছেলে তামিলনাড়ুর তিরুচিরাপল্লীতে সিএ পড়ছে এবং স্ত্রী এবং কনিষ্ঠ পুত্র কর্ণাটকের মঙ্গলুরুতে থাকে। আমি চাই তারা কেরালার আলাপুজ্জায় আমার বাড়িতে একসাথে থাকুক। আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি কিন্তু কোন ফল হয়নি। যদি কেউ তাদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনতে পারে তবে আমি ১০ লক্ষ টাকা দিতে প্রস্তুত। তিনি বলেছিলেন যে তিরুচিরাপল্লীর কাছ থেকে ১৫,০০০ টাকা দেওয়ার পরে তার বড় ছেলে ক্যাব বুক করার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু গাড়িটি কখনই চালিত হয়নি এবং অর্থ ব্যর্থ হয়।

তিনি আরও বলেন, আমি কেরালা এবং তামিলনাড়ু উভয় দেশের অনেক সরকারী কর্মকর্তা এবং রাজনীতিবিদদের সাথে কথা বলেছি। প্রত্যেকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কিন্তু কিছুই করেনি। তিনি বলেছিলেন  আমি আমার সোশ্যাল মিডিয়া ওয়াল এ প্রস্তাব দিয়েছিলাম। পোস্টের পরে বেশ কয়েকজন শুভাকাঙ্ক্ষী এবং বন্ধুরা তাকে ডেকেছিলেন। এটি কোনও প্রচারের স্টান্ট ছিল না, বরং পরিবারের সদস্যদের পুনরায় একত্রিত করার জন্য মরিয়া বাবার চেষ্টা ছিল।

লকডাউনটি ভারতে ১৭ মে অবধি চলছে। লকডাউনের তৃতীয় পর্বের প্রথম সপ্তাহটি শেষ হতে চলেছে, তবে করোনার ক্ষেত্রে এখনও সন্তোষজনক হ্রাস দেখা যায়নি। গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে দেশে করোনার ভাইরাসের ৩৩২০ টি নতুন কেস পাওয়া গেছে এবং ৯৯ জন মারা গেছে। শনিবার প্রকাশিত কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে, সারা দেশে করোনার ভাইরাসের ঘটনা বেড়েছে ষাট হাজার অর্থাৎ ৫৯৬৬২ জন।

Back to top button
Close