টাইমলাইনআন্তর্জাতিক

ল্যান্ডার খুঁজে পেতেই নিখোঁজ হলেন পাকমন্ত্রী যিনি উপহাস করেছিলেন ভারতকে নিয়ে

চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার হারিয়ে যাওয়ার পর পাকিস্তান এ নিয়ে ব্যাপক উপহাস করেছিল। পাকিস্তানের মন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব মজা উড়িয়েছিলেন। এখন চন্দ্রায়ণ 2 এর ল্যান্ডার বিক্রম অবশেষে পাওয়া গেছে। চন্দ্রায়ণ 2 এর আর্বিটর ল্যান্ডার বিক্রমের একটি থার্মাল বা তাপীয় চিত্র তুলেছে। বিক্রম ল্যান্ডারের খোঁজ পাওয়ার পরে ইসরো বিজ্ঞানীরা এখন বিক্রমের সাথে সংযোগ স্থাপনের চেষ্টা করছেন। তবে এখন সবচেয়ে মজাদার ব্যাপার হবে এটা দেখা যে পাকিস্তান থেকে এই বিষয় কি প্রতিক্রিয়া পাওয়া যাবে। কারণ লান্ডার বিক্রম খুঁজে পাওয়ার পর থেকে পাকিস্তানের নেতা মন্ত্রীরা সোশ্যাল মিডিয়া থেকে উধাও হয়ে গেছেন। ফাওয়াদ খান থেকে শুরু করে অন্যান্য পাক নেতামন্ত্রীদের এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

বিশেষত পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী, ফাওয়াদ চৌধুরী (Science and Technology Minister,Fawad Chaudhry) এই বিষয়ে কি টুইট করবেন তা দেখা খুব ইন্টারেস্টিং ব্যাপার হবে। পাকিস্তানই একমাত্র দেশ ছিল যা বিক্রম ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে আনন্দ প্রকাশ করেছিল। যার পরে ফাওয়াদ চৌধুরী  ইসরো এবং ভারতের বিজ্ঞানীদের  সম্বন্দে অনেক কটূক্তি সম্পন্ন টুইট করেছিলেন। এর পরে, তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত থেকেও বেশ পাল্টা কড়া প্রতিক্রিয়া পেয়েছিলেন।

ফাওয়াদ চৌধুরী বিক্রম নিখোঁজ হওয়ার পরে ট্যুইট করে লিখেচিলসন – প্রিয় “Endia” – যে  কাজটা পারো না সেটা করতে যাও কেন। পাকিস্তানের এই মন্ত্রী ইন্ডিয়াতে I এর জায়গায় E ব্যবহার করেছিলেন।
এরপরেও এই মন্ত্রী থামেনি তিনি দ্বিতীয় টুইটে লিখেছিলেন- “শুয়ে পর ভাই, চাঁদের জায়গায় খেলনাটা মুম্বাইতে ল্যান্ড করে গেছে। #ইন্ডিয়া_ফেলড (So ja Bhai moon ki bajaye Mumbai mein utar giya khilona #IndiaFailed)”
সোশ্যাল মিডিয়ায় ইন্ডিয়া দ্বারা ট্রোলড হওয়ার পরে এই পাকিস্তানি মন্ত্রী একটি টুইট করে লিখেছিলেন তিনি ভারতীয় ট্রোলারদের প্রতিক্রিয়া দেখে অবাক হয়েছেন যে তারা চাঁদ মিশনের ব্যর্থতার জন্য আমাকে (ফাওয়াদ) দোষ দিচ্ছেন। তিনি আরও লিখেছেন ভাই, আমরা বলেছিলাম যে এই অকর্মন্যদের উপর ৯০০ কোটি টাকা লাগাও? এখন ধৈর্য ধরুন এবং ঘুমানোর চেষ্টা করুন। #Indiafaailed

তবে এখন পাকিস্তানের মন্ত্রী ফাওয়াদ খান উধাও হয়ে গেছেন। বিক্রমকে খুঁজে পাওয়ার পর থেকে পাকিস্তানের মন্ত্ৰী লজ্জায় মুখ লুকিয়ে নিয়েছেন।
যদিও, ভারতীয় ট্রলার গণ এই মন্ত্রীকে এতটাই  খারাপভাবে ট্রোল করেছে যে এই মন্ত্রীর “অবস্থা ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচির” মতো হয়ে গেছিল। জানিয়ে দি যে, পাকিস্তানের  এই মন্ত্রী  চন্দ্রায়নে কতটা অর্থ ব্যয় হয়েছে সেটাই গণনা করতে পারছিল না তিনি আবার এসছে ভারতকে জ্ঞান দিতে। । তাছাড়া, কেউ পাকিস্তানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীর কাছে জিজ্ঞাসা করুন যে ভারত তো চাঁদে পৌঁছেছে, কিন্তু পাকিস্তান কোথায় পৌছালো?

Related Articles