টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গবিধানসভা নির্বাচন

তলে তলে বিজেপির হয়ে কাজ করছেন মহুয়া মৈত্র? রহস্যময় পোস্টার ঘিরে জল্পনা

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র এবং তৃণমূলের ব্লক সভাপতি বিশ্বরুপ রায়ের বিরুদ্ধে বেনামি পোস্টার পড়া নিয়ে চাঞ্চল্য নদিয়া জেলায়। গতকাল রবিবার নদিয়ার তেহট্টে একটি বেনামি পোস্টারে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র এবং ব্লক সভাপতি বিশ্বরুপ রায়কে ‘বিজেপির দালাল” অভিহত করে পোস্টার টাঙানো হয়। ওই পোস্টারে এও দাবি করা হয় যে, দলের নাম করে ব্লক সভাপতি বিশ্বরুপ রায় আর জেলা সভাপতি ICDS এর নিয়গে ঘুষ খেয়েছে।  আরেকটি পোস্টারে লেখা হয়, তৃণমূলের ব্লক সভাপতি আর জেলা সভাপতি যদি বিজেপিতে যোগ দেন, তাহলেই আমরা তৃণমূল করব। নচেৎ না। পোস্টারের নীচে লেখা হয় জনগণের কণ্ঠ।

জানিয়ে রাখি, বেশ কিছু দিন আগে তৃণমূল বিধায়ক গৌরীশঙ্কর দত্ত এবং ওনার ছেলে অয়ন দত্তের বিরুদ্ধে তেহট্ট আদালতের সামনে পোস্টার লাগানো হয়েছিল। পোস্টারে দাবি করা হয়েছিল যে, তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতারা যদি দল পরিবর্তন করে বিজেপিতে আসে, তাহলে বিজেপির পুরনো নেতা-কর্মীদের গুরুত্ব কমে যাবে।

নদিয়া জেলার তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় দত্তের বাড়ির আশেপাশেও ওনার বিরুদ্ধে এবং তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে পোস্টার লাগানো হয়েছে। এই বিষয়ে নদিয়া জেলার তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় দত্ত বলেন, ‘কে বা কারা এই কাজ করেছে জানিনা। তবে যে ভাষায় এসব পোস্টার লেখা হচ্ছে, সেখানে বাংলার সংস্কৃতি ফুটে উঠছে না। এদের শুভবুদ্ধি হোক এটাই চাই।”

আরেকদিকে, নদিয়া জেলার বিজেপি দাবি করছে যে, টাকা ভাগাভাগি নিয়ে গোষ্ঠী কোন্দল আর তাঁর জেরেই এসব পোস্টার ছাপানো হচ্ছে। বিজেপির নেতা অর্জুন বিশ্বাস জানান, ‘তৃণমূলে মধ্যে গোষ্ঠী কোন্দল চরম হারে বেড়ে গিয়েছে। এটা তাঁরই বহিঃপ্রকাশ। আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য আমাদের সাথে তৃণমূলের নাম জড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে।”

এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি বিশ্বরূপ রায় বলেন, ‘আমাদের একটাই দল, আর সেটা হল তৃণমূল। যারা রাতের অন্ধকারে এসে চোরের মতো এসব পোস্টার লাগিয়ে দিয়ে যাচ্ছে, তাঁরা ভালো করছে না। ওদের যদি সাহস থাকে, তাহলে দিনের বেলায় এসে এই কাজ করুক।” এই নিয়ে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রর এখনো কোনও প্রতিক্রিয়া সামনে আসেনি।

Back to top button