টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

অফলাইনে ‘না’, অনলাইনেই পরীক্ষা নিতে হবে, ধূপগুড়িতে পথ অবরোধ কলেজ পড়ুয়াদের

বাংলাহান্ট ডেস্ক : দেশ থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে সমস্ত কোভিড সংক্রান্ত বিধিনিষেধই। প্রায় দুবছর পর খুলে গিয়েছে স্কুল কলেজ। বিগত দুই বছর যাবৎ অনলাইনেই চলেছে রাজ্যের সমস্ত স্কুল কলেজের পড়াশোনা থেকে শুরু করে পরীক্ষা সবকিছুই। আর এই অনলাইন পরীক্ষাই যেন অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে পড়ুয়াদের। কিন্তু স্কুল কলেজ খুলে যাওয়ার পর আবারও অফলাইনেই পরীক্ষা নেওয়া হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিতে। কিন্তু এবার অফলাইনের পরিবর্তে অনলাইনে পরীক্ষার দাবিতে রাস্তায় নামল রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। বৃহস্পতিবার দুপুরে ধূপগুড়ি থেকে কোচবিহারগামী সড়ক অবরোধ করল সুকান্ত মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা।

ছাত্রছাত্রীদের অভিযোগ, মাত্র দিন দুয়েকই ক্লাস হয়েছে তাঁদের। এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পরীক্ষার দিন ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। ফলে সেই অর্থে কোনও প্রস্তুতিই নেওয়া সম্ভব হয়নি। সেই জন্যই অফলাইনের বদলে অনলাইন পরীক্ষার দাবিতেই সরব হয়েছেন তাঁরা। নিজেদের দাবিকে আরও দৃঢ় করতেই সড়ক অবরোধও করেন পড়ুয়ারা।

এক ছাত্রীর কথায়, ‘আমাদের এখনও পঠন-পাঠন সম্পন্ন হয়নি, এখনও অনেক পড়া বাকি অথচ আচমকা অফলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়েছে। কলেজে পঠন-পাঠন সম্পূর্ণ না হলে কী করে পরীক্ষা দেব। তাই আমরা আজ পথ অবরোধের সামিল হয়েছি। আমাদের দাবি, অনলাইনে পরীক্ষা নিতে হবে।’

অবরোধের খবর পেয়ে বিশাল পুলিশবাহিনি নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন ধূপগুড়ি থানার আইসি সুজয় তুঙ্গা। পুলিশ এসে তুলে দেয় ছাত্রছাত্রীদের অবরোধ। এরপরই কলেজের দুই নম্বর গেটের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। যদিও পুরো বিষয়টিতেই কোনও প্রতিক্রিয়াই জানাননি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

ধূপগুড়ি সুকান্ত মহাবিদ্যালযয়ের অধ্যক্ষ তথা রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় দূরশিক্ষা কেন্দ্রের সেন্টার ইনচার্জ ডা. নিলাংশু শেখর দাস বলেন, ‘ইউজিসির গাইডলাইন মেনে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে দু বছর অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল তবে এখনই ইউজিসি কেন্দ্রীয় ভাবে নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে অফলাইনে পরীক্ষা হবে। এর বাইরে আর কিছু বলার বা করার ক্ষমতা আমার নেই।’ ছাত্রছাত্রীদের দাবি কিছুই প্রস্তুতি নেই তাঁদের। সেক্ষেত্রে অনলাইন পরীক্ষা হলেও কীভাবে তা দেবেন তাঁরা? তবে কি অনলাইন পরীক্ষার আড়ালে নকল বা কোনও প্রতারণার সাহায্য নেওয়ার পথেই পড়ুয়ারা? উঠছে প্রশ্ন।

Related Articles

Back to top button