টাইমলাইনভারতরাজনীতি

‘রামচরিতমানস” কে জাতীয় গ্রন্থ বানালেই হিন্দু রাষ্ট্র হবে ভারত! দাবি বাগেশ্বর বাবার

বাংলা হান্ট ডেস্ক : ইদানিং কালে সংবাদের শিরোনামে রয়েছেন বাগেশ্বর ধামের (Bageshwar Dham) ধীরেন্দ্র কৃষ্ণ শাস্ত্রী (Dhirendra Krishna Shastri)। না জেনেই মানুষের সমস্যার সমাধান করে দিচ্ছেন তিনি। এমনকি সংবাদমাধ্যমের সামনেও এই অদ্ভুত কাজ করে দেখিয়েছেন তিনি। আর তারপর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ছেয়ে গেছেন তিনি। সেই ধীরেন্দ্র কৃষ্ণই এবার এক বিস্ফোরক দাবি করে বসলেন। তিনি বললেন ‘রামচরিতমানস’কে (Ramcharit Manas) রাষ্ট্রীয় গ্রন্থের আখ্যা দিতে হবে, তবেই ভারত হিন্দুরাষ্ট্রে পরিণত হবে।

কবি তুলসীদাসের রামচরিতমানস ভারতীয় সাহিত্যের এক বিখ্যাত গ্রন্থ। শুধু ভারত নয়, ভারতের বাইরেও বহু জায়গায় এই বই অত্যন্ত জনপ্রিয়। এবার এই ‘রামচরিতমানস’কেই ভারতের গ্রন্থের আখ্যা দেওয়া দাবি জানালানে বাগেশ্বর ধামের ধীরেন্দ্র কৃষ্ণ শাস্ত্রী। তিনি তাঁর ধর্মকথা মূলক এক সভায় বলেন, ‘ভারতকে হিন্দুরাষ্ট্র ঘোষণা করতে হলে অবশ্যই রামচরিতমানসকে জাতীয় গ্রন্থের মর্যাদা দিতে হবে।’

dhirendra

কিছুদিন আগেই, স্বঘোষিত এই ধর্মগুরুকে চ্যালেঞ্জ জানায় মহারাষ্ট্রের অন্ধশ্রদ্ধ নির্মূলন সমিতি। অভিযোগ, সেই চ্যালেঞ্জেই আসর ছেড়ে বেরিয়ে আসেন তিনি। মধ্যপ্রদেশের বুন্দেলখন্ডের ছত্তরপুরের এই বাসিন্দা ধীরেন্দ্র কৃষ্ণ শাস্ত্রীকে ঘিরে একাধিক খবর প্রকাশ্যে উঠে আসছে। উঠছে একাধিক বিতর্কও।

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ‘এরকম মানুষরা আসতে থাকবেন। আমাদের দরজা বন্ধ নয়। তাঁরা আসুন নিজেদের জন্য। ক্যামেরার সামনে যে কেউই আমার কথা বা কর্মকে চ্যালেঞ্জ করতেই পারেন। লক্ষ লক্ষ মানুষ বাগেশ্বর বালাজির দরবারে বসেন। আমাকে যা অনুপ্রেরণা দেয়, আমি তাই লিখি, আর যা লিখি তা সত্যি হয়।’ ওই সাক্ষাৎকারেই তিনি বলেন, সনাতন ধর্মকে যাঁরা বিরোধ করবেন তাঁদের বয়কট করা হবে। তিনি বলেন, ‘যাঁরা ধর্মসূত্রে হিন্দু , তাঁদের ধর্মে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। কিছু মানুষ তাতে বাধা দিচ্ছেন। তাঁদের শিক্ষা দিতে হবে। আমি যতদিন বেঁচে আছি, ততদিন আমি সনাতনি হিন্দুদের তাঁদের নিজস্ব ধর্মে ফিরিয়ে আনব।’

Related Articles