টাইমলাইনখেলাক্রিকেটIPL

গোটা মরশুমে সুযোগ পাননি ছেলে অর্জুন! সেই নিয়ে মুখ খুললেন বাবা সচিন টেন্ডুলকার

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: সচিন টেন্ডুলকারের পুত্র অর্জুন টেন্ডুলকার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স স্কোয়াডে থাকলেও চলতি মরশুমের আইপিএলে কোনও ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি। মাঝে মুম্বাইয়ের ফর্ম যখন এই বছর চূড়ান্ত খারাপ যাচ্ছিল তখন তাকে দলে অন্তর্ভুক্ত করার দাবি উঠেছিল। নেটে তার দুরন্ত বোলিং দেখে এই দাবি তুলেছিলেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ভক্তরা। কিন্তু মরশুমের ১৪টি ম্যাচ খেলার পরও অভিষেকের সুযোগ পাননি এই তরুণ অলরাউন্ডার। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স অনেক আগেই টুর্নামেন্টের প্লে-অফের লড়াই থেকে ছিটকে গিয়েছিল। মনে করা হচ্ছিলো যে শেষ ম্যাচে ২১শে মে দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে অর্জুনের আইপিএলে অভিষেক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, কিন্তু শেষপর্যন্ত তা হয়নি।

রোহিত শর্মা স্বয়ং এই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। তিনি দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগে বলেছিলেন, “এর পরে আমাদের আরও একটি ম্যাচ আছে এবং আমরা সেই ম্যাচে আরও সুযোগ দেওয়ার চেষ্টা করতে পারি।” এমন পরিস্থিতিতে অধিনায়ক রোহিত অর্জুন টেন্ডুলকারের দিকে আঙুল তুলেছিলেন কিনা তা নিয়ে এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান জল্পনা হয়েছিল। গত মরশুমে দলে অন্তর্ভুক্ত হওয়া অর্জুন বল ছাড়াও লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিং করতেও সিদ্ধহস্ত।

মুম্বাইয়ের ফর্ম চূড়ান্ত খারাপ থাকায় এখন ক্রিকেট অনুরাগীরা শেষ ম্যাচে বুমরার সঙ্গী হিসেবে অর্জুনকে অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে চূড়ান্ত আবেদন করছিলেন। অর্জুন, যিনি গত কয়েক বছর ধরে নেট বোলার হিসাবে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের স্কোয়াডের অংশ ছিলেন, আইপিএল ২০২১-এ পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা নিলামে তাকে ২০ লক্ষ টাকা দিয়ে দলে নিয়েছিল৷ কিন্তু গত সংস্করণে তার মাঠে নামা হয়ে ওঠেনি। এই বছরের মেগা নিলামে ৩০ লক্ষ টাকা দিয়ে তাকে দলে নেওয়া হয়েছিল।

দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে জয় দিয়ে মরশুম শেষ করার পর ছেলের মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলে সুযোগ না পাওয়া নিয়ে মুখ খুলেছেন স্বয়ং সচিন টেন্ডুলকার। তিনি অর্জুনকে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের একাদশে দেখতে চাইছিলেন কিনা প্রশ্নের জবাবে সচিন বলেন, “আমি কি ভাবি বা চাই সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমি ওকে সবসময় বলি তোমার রাস্তাটা যথেষ্ট কঠিন হবে। কিন্তু পরিশ্রম করলে সাফল্য আসবে। আর দল নির্বাচনের ব্যাপারে আমি থাকি না। এটা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার যে তারা কাকে সুযোগ দেবেন।”

Related Articles

Back to top button