টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

হাইকোর্টের নির্দেশে চাকরি গেল পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষের, সব চক্তান্ত বললেন শিক্ষিকা

বাংলাহান্ট ডেস্ক : শিক্ষক নিয়োগে দূর্নীতি নিয়ে এরই মধ্যে অভিযোগের পাহাড় জমেছে দীর্ঘদিন ধরে, চলছে একাধিক মামলাও। এই অবস্থায় এবার চাকরি বাতিল হলো পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ সঞ্চিতা প্রধানের। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে প্রাথমিক শিক্ষিকার চাকরি গেল পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষের! পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামের ঘটনায় তুঙ্গে উঠেছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।

২০১৪ সালের প্রাথমিকের টেটে নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় ২৬৯ জনকে চাকরি থেকে বরখাস্ত এবং তাঁদের বেতন বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। সেই তালিকায় তৃণমূলের একাধিক নেতা-নেত্রীর ছেলে-মেয়েরা যেমন রয়েছেন, তেমনই শাসকদলের নেত্রী এবং পঞ্চায়েত সমিতির পদাধিকারীর নামও রয়েছে। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ৩০ জন প্রাথমিক স্কুলশিক্ষকের চাকরি গেছে। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড সূত্রে খবর, তাঁদের হাতে যে তালিকা এসে পৌঁছেছে, তাতে ২০ নম্বরে রয়েছে সঞ্চিতা প্রধানের নাম। ইতিমধ্যেই সেই তথ্য উঠে এসেছে আমদের সামনে।

সঞ্চিতা নন্দীগ্রামের উত্তর বয়াল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। অথচ তাঁর দাবি, তিনি এবিষয়ে কিছু জানেন না। যদিও নন্দীগ্রাম ২ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মহাদেব বাগ বলেন, উনি দেখেছিলেন নাকি! সম্পূর্ণ অসত্য কথা বলছেন। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকে বলছেন। চাকরি কীভাবে হয়েছিল, কীভাবে গেল, যারা চাকরি দিয়েছিল তাঁরাই বলতে পারবেন।

সঞ্চিতা বলেন, আমার কাছে সে রকম কোনও তথ্য এখনও নেই। কোনও নির্দেশ আমার কাছে আসেনি। আমাদের নিয়োগ ধারাবাহিক নিয়ম মেনেই হয়েছিল। স্টেট কাউন্সিল, ডিস্ট্রিক্ট পর্ষদ সব জায়গা থেকে নথি নিয়ে আমাদের নেওয়া হয়েছিল।

এপ্রসঙ্গে নন্দীগ্রামের বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী বলেন, উনি মহাদেবের মাধ্যমে টাকা দিয়েছেন পার্থকে। ১০-১২ লাখ তো দিয়েছেনই। আরও বলেন, পরীক্ষা দেননি। বেসিক নেই। টেট পাস করেননি। এরকম হাজার হাজার আছে। সব যাবে চাকরি। হরি হরি বোল।

Related Articles

Back to top button