টাইমলাইনবিনোদন

মা উড়ালপুলের উপর গাড়ি থামিয়ে নাইটি পরে উদ্দাম নাচ! আইনি জটিলতায় জড়ালেন স‍্যান্ডি সাহা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: এমনিতেই বিতর্ক তাঁর নামের সঙ্গেই জুড়েই থাকে। একাধিক তারকার সঙ্গে ‘পাঙ্গা’ নিয়ে দিব‍্যি লাইমলাইট নিজের দিকে ঘুরিয়ে নিয়েছেন বারবার। আর এবার উড়ালপুলের মাঝে নেচে আইনি ঝামেলায় জড়ালেন। তিনি জনপ্রিয় ইউটিউবার স‍্যান্ডি সাহা (sandy saha)। শরীরে কাদা মাখা থেকে শুরু করে অদ্ভূত পোশাক পরে অঙ্গভঙ্গি, দর্শকদের বিনোদন দিতে যেকোনো সীমা লঙ্ঘন করতে রাজি তিনি। তবে এবারে যে একটু বাড়াবাড়ি হয়ে গিয়েছে সেটা তিনিও বুঝেছেন।

কী কাণ্ড করেছেন এবার স‍্যান্ডি? গত কয়েকদিন ধরেই সংবাদ শিরোনামে রয়েছে মা উড়ালপুল। রাজনৈতিক জগৎ ছাড়িয়ে বিনোদন জগতের তারকারাও বিষয়টা নিয়ে মশকরা শুরু করেছেন। সুযোগটা ছাড়েননি স‍্যান্ডি। মা উড়ালপুলের উপরেই গাড়ি থামিয়ে নাইটি পরে নেচে নিয়েছেন। আর সেই ভিডিও পোস্ট হতেই লালবাজারের নজরে ইউটিউবার।


উড়ালপুলের উপরে গাড়ি থামানোর অভিযোগে ইতিমধ‍্যেই নাকি স‍্যান্ডির ক‍্যাব চালক ও গাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে ব‍্যবস্থা নিতে তৎপর হয়েছে তিলজলা ট্র‍্যাফিক গার্ড। সমস‍্যার মুখে পড়তে হতে পারে ইউটিউবারকেও। বিপাকে পড়ে স‍্যান্ডির বিরুদ্ধেই মুখ খুলেছেন ক‍্যাব চালক‍। তিনি নাকি বারংবার উড়ালপুলের উপরে গাড়ি থেকে নামতে বারন করেছিলেন স‍্যান্ডিকে। কিন্তু সে কথা কানেই তোলেননি তিনি।

এদিকে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স‍্যান্ডি। তাঁর দাবি, মিথ‍্যে বলছেন ক‍্যাব চালক। হ‍্যাঁ, ট্র‍্যাফিক আইন না জেনে উড়ালপুলের উপর নেমে ভুল করেছিলেন সেটা স্বীরকার করছেন স‍্যান্ডি। তাঁর কথায়, “কোনো উড়ালপুলে নামা যায় না বা সেখানে নাচা যায় না এমন কোনো আইন আছে সেটা আমি জানতাম না। আমি যদিও সতর্ক ভাবেই উড়ালপুল পার করেছিলাম। কিন্তু কোনো নিয়ম যদি ভেঙেই থাকি তাহলে যা যা করণীয় আমি করব।”

স‍্যান্ডি আরো বলেন, “ক‍্যাব চালক বলেছেন উনি বারন করা সত্ত্বেও আমি উড়ালপুলে নেমেছি। পুলিস এলে নাকি আমি নাটক করতে বলেছিলাম। এমন কিছুই আমি করিনি। আমি শুধু ওঁকে বলেছিলাম গাড়িটা দাঁড় করাতে আমি ভিডিও করব। চালকের উচিত ছিল নিষেধাজ্ঞার কথা আমায় জানানো। কিন্তু উনি সেটা করেননি। বরং বলেচিলেন কোনও অসুবিধা নেই। আমি এরপর নেমে যাই এবং নাচানাচি করে ভিডিও বানাই। সে তো আমি সবসময়ই রাস্তায় বেরলে নাচানাচি করি।”

তবে স‍্যান্ডিও এও বলেছেন ক‍্যাব চালকের বিরুদ্ধে যাতে কোনো ব‍্যবস্থা না নেওয়া হয় বা তাঁর লাইসেন্স যাতে বাতিল না হয় তার জন‍্য পুলিসের কাছে আবেদধ জানাবেন তিনি। উপরন্তু যদি চালকের কোনো অর্থসাহায‍্য লাগে তাহলে সাহায‍্য করতে রাজি আছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button