টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

বসিরহাটে প্রচারে বেরিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে কি বলনেন শায়ন্তন বসু

 

অর্ণব মৈত্রঃ গত দুদিন আগে বনগাঁ লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচনের প্রচারের শেষ দিনে প্রচারে বেরিয়ে দুর্ঘটনার সম্মুখীন হতে হয় বিজেপি প্রার্থী শান্তনু ঠাকুরকে। দুর্ঘটনার পরই সাংবাদিক সম্মেলন করে শান্তনু ঠাকুর টাকা বিলি করতে বেরিয়েছিলেন বলে অভিযোগ তুলেছিলেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। সোমবার বসিরহাটে প্রচারে বেরিয়ে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের সেই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর বিরুদ্ধে কিছু বলতে রাজি নন বলে উল্লেখ করেও বিজেপি প্রার্থী সায়ন্তন বসু বলেন, ” যার বিরুদ্ধে চাল চুরির অভিযোগে সিবিআই তদন্ত করছে তার বিরুদ্ধে কিছু বলতে চাইছি না আমি। আরকিছুদিনের মধ্যে সিবিআই তদন্তের রিপোর্ট জমা দেবে তখনই বোঝা যাবে চাল চুরি হয় কি হয় না”। এদিন আবারও শান্তনু ঠাকুরকে মারার উদ্দেশ্যে চক্রান্ত করে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছিল বলে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন সায়ন্তন বসু। সোমবার বনগাঁ কেন্দ্রে ভোট থাকায় বনগাঁ লোকসভা অন্তর্গত বসিরহাট মহকুমার স্বরূপনগর ব্লকের বালতি নিত্যানন্দ কাটি এলাকার ১১৩, ১২০ ও ১২১ নম্বর বুথে বিজেপি পোলিং এজেন্টদের বসতে না দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে।।

 

ওই এলাকার ভোটারদের মারধোর করে রাস্তা থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ তোলেন ১২১ নম্বর বুথের ভোটার রবীন রপ্তান। বিজেপি পোলিং এজেন্টের বুথে বসতে না দেওয়ার অভিযোগ তুলে সায়ন্তন বসু বলেন,” তৃণমূল কংগ্রেস সর্বত্র হারবে সেটা বুঝতে পেরে ওদের চোখেমুখে সেই ছাপ ফুটে উঠেছে। সেই কারণেই বিজেপি পোলিং এজেন্টদের বসতে বাধা দিয়ে সন্ত্রাস সৃষ্টির চেষ্টা করছে ওরা”।

সোমবার সকালে স্বরূপনগর ব্লকের ভোট পরিস্থিতির দিকে নজর রাখার মধ্যেই বসিরহাট মায়ের বাজার এলাকায় প্রচার সারেন সায়ন্তন বসু। মায়ের বাজারের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের পাশাপাশি কখনো চায়ে চুমুক আবার কখনো খবরের কাগজে চোখ বুলিয়ে নিতে দেখা যায় সায়ন্তন বসুকে। ,

Back to top button
Close