টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

বিজেপি মেরুদণ্ডহীন, টুইটারে ক্ষোভ পশ্চিমবঙ্গের হিন্দুদের

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ দোসরা মে বিজেপির বাংলা দখলের স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়েছে। এরপর থেকেই দিকে দিকে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের উপর অত্যাচারের ঘটনা সামনে এসেছে। বিজেপির পার্টি অফিস ভাঙচুর, বাড়িতে ভাঙচুর-লুটপাট চলেছে। এমনকি বিজেপি একাধিক বিজেপি কর্মীদের মৃত্যুও হয়েছে। এছাড়াও বহু বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা ঘরছাড়া হয়েছে। পূর্ব বর্ধমানের ৫০ থেকে ৬০ ঘর বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা পালিয়ে গিয়ে পাশের জেলায় আশ্রয় নিয়েছে।

এছাড়াও অসমের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা বিজেপির নেতা হিমন্ত বিশ্বশর্মা গতকাল একটি টুইট করে বলেন যে, ‘৩০০ থেকে ৪০০ বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা প্রাণ ভয়ে বর্ডার ক্রস করে অসমে এসে আশ্রয় নিয়েছে। আমরা তাঁদের থাকা খাওয়ার বন্দোবস্ত করেছি।” হিমন্ত বিশ্বশর্মা এও বলেন যে, দিদির গুন্ডারা পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের নগ্ন নাচ করছে। বাংলা এর থেকে ভালো কিছু পেত।

দিকে দিকে কর্মী-সমর্থকরা আক্রান্ত হওয়ার পর চারিদিকে যেমন আতঙ্কের মহল সৃষ্টি হয়েছে, তেমনই বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভও বাড়ছে। তবে এই ক্ষোভ শুধু তৃণমূল আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়েই না, এই ক্ষোভ দলের নেতাদের বিরুদ্ধেও। আর সেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে সোশ্যাল মিডিয়ায় সাইট টুইটারে। সেখানে বিজেপি মেরুদণ্ডহীন বলে হাজার হাজার টুইট করে ট্রেন্ড করানো হচ্ছে।

#SpinelessBJP হ্যাশট্যাগ দিয়ে টুইটারে ট্রেন্ড করানো হচ্ছে। সেখানে বিজেপির সমর্থকরা বিশেষত হিন্দুরা বিজেপিকে তুলোধোনা করছে। তাঁদের দাবি অনুযায়ী, বাংলায় বিজেপির কর্মীদের বাঁচাতে অবিলম্বে রাষ্ট্রপতি শাসন লাগু করা উচিৎ। কিন্তু কেন্দ্রের মোদী সরকার ৩০৩ আসন নিয়েও রাষ্ট্রপতি শাসন লাগু করার কোনও কথাই বলছে না। টুইটারে যারা বিজেপি এবং কেন্দ্রের মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে তাঁদের দাবি অনুযায়ী, বাংলায় এক বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষ বিজেপির হিন্দু কর্মী-সমর্থকদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে, আর সেটা দেখেও চুপ মোদী সরকার।

Back to top button