টাইমলাইনবিনোদন

টিশার্ট-শর্টসে শীর্ষাসন শ্রীলেখার, ছবি শেয়ার করতেই ধেয়ে এল কুরুচিকর ট্রোল

বাংলাহান্ট ডেস্ক: দেখে কে বলবে চল্লিশের কোঠায় পৌঁছেছে বয়স। এখনো ফিটনেসের মামলায় তাবড় টলি সুন্দরীদের বলে বলে গোল দিতে পারেন শ্রীলেখা মিত্র (sreelekha mitra)। আর তাঁর এই ফিটনেসের রহস‍্য সোশ‍্যাল মিডিয়ার দৌলতে এখন জানা হয়ে গিয়েছে অনেকেরই। আবারো শরীরচর্চা করতে গিয়েই কুৎসিত ট্রোলের শিকার হলেন অভিনেত্রী।

শ্রীলেখা এবং শরীরচর্চা দুইই একে অপরের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। সোশ‍্যাল মিডিয়ায় প্রায়ই শরীরচর্চার ছবি দেন তিনি। তবে এই লকডাউনে জিম বন্ধ থাকায় বাড়িতেই কসরৎ চালু করেছেন শ্রীলেখা। নিয়ম করে চলছে যোগাসন। এদিন শীর্ষাসন করার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ‍্যমে শেয়ার করেছেন অভিনেত্রী।


বিছানার উপর দেওয়ালে ভর দিয়ে শীর্ষাসন করতে দেখা গিয়েছে শ্রীলেখাকে। পরনে হলুদ টিশার্ট ও নীল শর্টস। শীর্ষাসনরত শ্রীলেখার পাশেই বসে রয়েছে তাঁর এক পোষ‍্যও। যদিও অভিনেত্রীর কাণ্ডকারখানার প্রতি তার তেমন উৎসাহ নেই বলেই মালুম হচ্ছে ছবি দেখে। ছবিগুলি নেটমাধ‍্যমে শেয়ার করতেই কার্যত ঝাঁপিয়ে পড়েছে ট্রোলাররা।

ধেয়ে এসেছে একের পর এক কুৎসিত মন্তব‍্য। শ্রীলেখার শারীরিক গঠন বা বয়স নিয়েও কটাক্ষ করতে ছাড়েনি নেটিজেনদের একাংশ। কিন্তু প্রতিটি নেতিবাচক মন্তব‍্যই ঠাণ্ডা মাথায় উপেক্ষা করেছেন শ্রীলেখা। তবে অভিনেত্রীর প্রশংসাকারীর সংখ‍্যাও নেহাত কম নয়। অনেকেই লিখেছেন, শ্রীলেখা অনুপ্রেরণা দেন তাদের। তাঁর মানসিকতা, মনের জোর মুগ্ধ করে তাদের।

শ্রীলেখার কাছে ট্রোলিং নতুন নয়। তাঁর যে কোনো ছবি বা মতামত নিয়েই যেন সমালোচনা করার জন‍্য মুখিয়ে থাকে কিছু মানুষ। কখনো ট্রোলের যোগ‍্য জবাব দেন তিনি আবার কখনো চুপ থাকাই শ্রেয় মনে করেন।

এর আগে শ্রীলেখা অভিযোগ করেছিলেন বিজেপি নেত্রী রিমঝিম মিত্র একটি কমেন্টে তাঁকেই কটাক্ষ করে ‘থলথলে বৌদি’ বলেছেন। পালটা নাম না করে নিজের সোশ‍্যাল মিডিয়া হ‍্যান্ডেলে রিমঝিম লেখেন, ‘যার যার বাজার মন্দা যাচ্ছে ফুটেজের জন্য নিজে খেটে খান, আমার নামে ফালতু বিল কাটবেন না।’

Related Articles

Back to top button