টাইমলাইনখেলাক্রিকেট

লোকে বলত ‘তুই ধাবায় কাজ করার যোগ্য”, ম্যাগি খেয়ে মেটাত খিদে! আজ ৭০ কোটি টাকার মালিক

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: ভারতে ক্রিকেট এমন একটি খেলা যার জন্য দেশের ছেলেমেয়েদের মধ্যে আবেগের অন্ত নেই। ভারতের জনপ্রিয় টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগ আইপিএলের সময়টা দেশে উৎসবের মতো পালন করা হয় এবং বছরের এই দিনগুলোতে আইপিএল নিয়ে মানুষ মেতে থাকে। চলতি বছরে দুটি নতুন দল আইপিএলে যোগ দিয়েছে যাদেরকে নিয়ে ভক্তদের মধ্যে আলাদা উৎসাহ রয়েছে কারণ নতুন দুটি দলই আত্মপ্রকাশের মরশুমে পুরনো দলগুলিকে টেক্কা দিচ্ছে। তবে আরও মজার বিষয় হল নবগঠিত দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন দুই নতুন তরুণ ভারতীয় খেলোয়াড়, যাদের একজন হলেন হার্দিক পান্ডিয়া, যিনি গুজরাট টাইটান্সের অধিনায়ক হিসেবে টাটা আইপিএলে অংশ নিয়েছেন। তারা এখনও পর্যন্ত ৫ ম্যাচের মধ্যে চারটি জিতে শীর্ষে উঠে এসেছেন পয়েন্টস টেবিলের।

হার্দিক পান্ডিয়া তার দলের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের কারণে আজকাল প্রচুর শিরোনাম থাকছেন এবং লোকেরা তাকে অনুপ্রেরণা হিসাবে দেখছে। তবে তার এই জায়গায় পৌঁছনোর আগে সংগ্রামের দিনগুলিতে এমন একটি সময় ছিল যখন হার্দিক পান্ডিয়ার কাছে তার ক্রিকেট কিট কেনা, খাওয়া এবং ক্রিকেট খেলা বজায় রাখার জন্য অর্থ ছিল না। লোকে তাকে গুরুত্বও দেয়নি, ক্রিকেট খেলা ছেড়ে তাকে ধাবায় কাজ করার পরামর্শও দেওয়া হয়েছিল। হার্দিক একবার তার সংগ্রামের দিনগুলির কথা বলতে গিয়ে একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন যে তিনি তার ডায়েট বজায় রাখতে খেলার আগে এবং পরে শুধুমাত্র ম্যাগি খেয়ে থাকতেন। পুষ্টিকর খাওয়ার পরিবর্তে তিনি ম্যাগি খেয়ে নিজের কাজ চালাতেন।

যখন তিনি ক্রিকেট অনুশীলন করতেন, তখন তার কাছে সম্পূর্ন ক্রিকেট কিটও ছিল না, তাই তিনি প্রায়শই তার সতীর্থ বা সমিতির কাছ থেকে কিট ধার করতে বাধ্য হতেন। হার্দিক পান্ডে বলেছেন যে তার বাবাই বাড়িতে একমাত্র কাজ করতেন এবং তার পরিবারের আয় খুব বেশি না হওয়া সত্ত্বেও, তার বাবা সবসময় তাকে এবং তার ভাই ক্রুনালকে অনেক সমর্থন করেছিলেন। এছাড়াও হার্দিক তার জীবনের অনেক চ্যালেঞ্জের কথাও বলেছেন এবং তার ভক্তদের বলেছেন যে যদিও আজ তিনি একজন বলিউড তারকার মতো জীবনযাপন করেন, তবুও তিনি জীবনের এমন একটি পর্বের মধ্য দিয়ে গেছেন যখন খাবারের জন্য অর্থ সংগ্রহ করাও তার কাছে সহজ ছিল না।

তার পরিবারের জন্য তার এই জায়গায় পৌঁছনো একটি বড় ব্যাপার ছিল। তিনি আজ যে জায়গায় আছেন, তা ওই ধরনের সংগ্রামী পরিস্থিতি থেকে উঠে আসা, এটি ভারতের যুবকদের জন্য একটি উদাহরণ এবং জীবনের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হওয়া লোকদের জন্য তার এই লড়াইয়ের গল্প খুব বড় অনুপ্রেরণা।

Related Articles

Back to top button