fbpx
টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

অদ্ভুত কান্ড: আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকা গেল পাকা বাড়ির মালিকদের কাছে

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ কিছুদিন আগেই রাজ্যে তাণ্ডব চালিয়ে গেল আমফান (Amphan)। কয়েকশ মানুষকে গৃহহীন করে গিয়েছে। সঙ্গে নিয়ে গিয়েছে কত মানুষের প্রান। হাহাকার করিয়ে গিয়েছে কত মানুষকে। বাধ্য করেছে চোখের জল ফেলতে। তাদের উদ্দেশ্যেই রাজ্য সরকার মাথাপিছু ২০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেছে। টাকা সরাসরি চলে যাচ্ছে ক্ষতিগ্রস্তদের অ্যাকাউন্টে।

কিন্তু এত কিছুর মাঝেই অভিযোগ উঠেছে, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তের বদলে একতলা বা দোতলা পাকা বাড়ির মালিকেরা নিজেদের ক্ষতিগ্রস্ত বলে মিথ্যা দাবি করে টাকা পেয়ে গিয়েছেন। এ ঘটনায় স্থানীয়রা কল্যাণী ব্লকের বিডিও দীপ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন।

স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য বাপ্পা অধিকারীর দাদা সোমনাথ অধিকারী ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েছেন। পেশায় ব্যবসায়ী সোমনাথবাবুর বাড়ি বৃহস্পতিবার দুপুরে গিয়ে দেখা গেল, আট কামরার দোতলা বাড়ি তাঁর। আমপান সেই বাড়ির বিন্দুমাত্র ক্ষতি করেনি। সোমনাথবাবু অবশ্য নির্বিকার ভাবেই বললেন, ‘‘সবকিছু তো মানুষের জন্যই। তাই সরকারি টাকা আমি নিয়েছি।’’ কিন্তু ওই টাকা দরিদ্র ও ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য বরাদ্দ হয়েছিল বলে জানানো হলে তাঁর মন্তব্য, ‘‘সরকারের টাকা যে সুযোগ  পাবে সেই নেবে। এতে গরিব-বড়লোকের কী আছে!’’

কল্যাণীর মদনপুর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের মাজদিয়ায় ২৮ জনের ঘর আমপানে পুরোপুরি ভেঙে গিয়েছে বলে রিপোর্ট জমা পড়েছে কল্যাণী ব্লকে। তার ভিত্তিতে ব্লক স্তর থেকে তাঁদের অ্যাকাউন্টে সরাসরি ২০ হাজার টাকা চলে গিয়েছে। অনেকে সেই টাকা তুলেও নিয়েছেন। কিন্তু অভিযোগ, ওই ২৮ জনের মধ্যে অন্তত ২০ জনের পাকাপোক্ত ইটের গাঁথনিওয়ালা বাড়ি রয়েছে। এবং আমপানের সেই বাড়ির সামান্যতম ক্ষতিও হয়নি।

 

মাজদিয়ার সাঁতরাপাড়ায় পঞ্চায়েত সদস্য পবিত্র সাঁতরাও ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েছেন। এ দিন গিয়ে দেখা গেল, তাঁরও দিব্যি সুন্দর রঙ করা দোতলায় বাড়ি। তাঁর স্ত্রী মুকুল সাঁতরার কথায়, ‘‘রান্নাঘরের চারটে টালি ভেঙে গিয়েছে। ওই টাকার থেকে ২০০ টাকা খরচ করে টালি কিনবো। বাকি টাকা ব্যাঙ্কে জমিয়ে রাখব!’’ সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে তাঁর মন্তব্য, ‘‘ এখন মনে হচ্ছে, টাকাটা নেওয়া উচিত হয়নি। আসলে সেই সময় ভেবেছিলাম, রাজনৈতিক ক্ষমতা যখন আছে তখন নিয়ে নিই!’’ স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান তৃণমূলের কুমুদ সরকারকে ফোন করা হলেও তাঁর ফোন বন্ধ ছিল। ওই এলাকার বাসিন্দা তথা জেলা পরিষদের সদস্য তৃণমূলের রূপালি সাহা-র কথায়, ‘‘সত্যিই পঞ্চায়েত এ সব করেছে। এর জবাব পঞ্চায়েতই দিতে পারবে।’’

ব্লক অফিস সূত্রে জানা যাচ্ছে, অন্যের ভাঙা ঘরের ছবি দেখিয়ে কিছু লোক টাকার জন্য আবেদন করে সরকারি টাকা নিয়েছেন। একাধিক অভিযোগ পেয়ে এখন আধিকারিকেরা বাড়ি-বাড়ি গিয়ে খতিয়ে দেখছেন। এ ব্যাপারে কল্যাণীর বিডিও দীপ চট্টোপাধ্যায়ের মন্তব্য, ‘‘তদন্ত প্রক্রিয়া এখনও চলছে। রিপোর্ট তৈরির কাজ শেষ না হলে নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাবে না।’’

Back to top button
Close
Close