টাইমলাইনভারতভিডিও

গঙ্গার ঘাটে বসে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা! ভোর ৪ টায় শুরু হয় ক্লাস

বাংলা হান্ট ডেস্ক: ক্লাসের পাশাপাশি স্কুল-কলেজ বা ইউনিভার্সিটি ক্যাম্পাসের বাগান বা লাইব্রেরিতেও পড়ুয়াদের পড়াশোনা নজরে পড়ে সবার। এমনকি মন্দিরেও ছাত্র-ছাত্রীদের একসঙ্গে বসে পড়াশোনা করার ঘটনাও সামনে এসেছে। মূলত, পড়াশোনার ক্ষেত্রে “গ্রুপ স্টাডি”-তে উপকৃত হন পড়ুয়ারা। কিন্তু, এবার এমন একটি ঘটনা সামনে এসেছে যা নিঃসন্দেহে অবাক করেছে সবাইকেই।

পাশাপাশি, এই দৃশ্য অনুপ্রাণিত করবে অন্যান্য পড়ুয়াদেরও। ইচ্ছে থাকলেই যে উপায় হয় তা আরও একবার প্রমাণ করে দেখাচ্ছেন বিহারের পড়ুয়ারা। মূলত, বিহারের ছাত্ররা তাঁদের একাগ্রতা এবং কঠোর পরিশ্রমের জন্য পরিচিত। দেশের যে কোনো প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষাতেই দুর্দান্ত ফলাফল করেন তাঁরা। এবার, তাই পড়াশোনার জন্য তাঁরা বেছে নিলেন গঙ্গার ঘাটকেই।

পাটনার গঙ্গা ঘাটে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে দেখা যায় তাঁদের। আসলে, আরআরবি গ্রুপ ডি পরীক্ষা আগামী জুন মাসে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। বিহারের বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীরা আবেদন করেছেন এই পরীক্ষায়। সেই কারণেই প্রার্থীরা তাঁদের প্রস্তুতিতে কোনোরকম খামতি রাখতে চান না। ফলে সকাল থেকেই গঙ্গার ঘাটে দল বেঁধে এই পরীক্ষার্থীরা পড়াশোনা শুরু করেন। ভোর চারটে থেকেই তাঁদের “গ্রূপ স্টাডি” শুরু হয়ে যায়।

প্রথমদিকে, ওই যুবকদের কেবল পাটনা কলেজ ঘাটে প্রস্তুতি নিতে দেখা গেলেও এখন ধীরে ধীরে কালী ঘাট, কদম ঘাটেও জড়ো হচ্ছেন পরীক্ষার্থীরা। তবে, শুধু পাটনা কলেজের শিক্ষার্থীরাই নয়, তাঁদের পাশাপাশি অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থীরাও এখানে আসেন। এছাড়া, হোস্টেলে অধ্যয়নরত পড়ুয়ারাও গঙ্গার ঘাটে আসেন প্রস্তুতির জন্য। ভোর ৪ টায় উঠে সরাসরি গঙ্গার ঘাটে পৌঁছে সেখানকার শীতল পরিবেশে পরীক্ষার প্রস্তুতিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন তাঁরা।

এদিকে, তাঁদের এই প্রস্তুতির ছবি ঝড় তুলেছে নেটমাধ্যমে। ইতিমধ্যেই অনেকেই শেয়ার করেছেন এই ছবিগুলি। বিষয়টি টুইটারে শেয়ার করেছেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হর্ষ গোয়েঙ্কা। ছবির ক্যাপশনে তিনি লিখেছেন, “বিহারের পাটনার পড়ুয়ারা গঙ্গা নদীর তীরে বসে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। এটাই আশা ও স্বপ্নের ছবি।” পাশাপাশি আইএএস অফিসার অবনীশ শরনও টুইটারে এই ছাত্রদের ছবি শেয়ার করেছেন। এছাড়াও, এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেটমাধ্যমে। তবে, পড়ুয়াদের এই অভিনব পন্থাকে কুর্ণিশ জানিয়েছেন সকলেই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আরআরবি গ্রুপ ডি পরীক্ষায় এক লক্ষ তিন হাজার পদে নিয়োগের জন্য পরীক্ষা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই সারাদেশ থেকে ১.১৫ কোটি আবেদন গৃহীত হয়েছে।

Related Articles