টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

তৃণমূলের শীর্ষ নেতার সঙ্গে বৈঠকে নিজের মনোমালিন্যের কারণ স্পষ্ট করে জানালেন শুভেন্দু

বাংলা হান্ট ডেস্ক : শুভেন্দু অধিকারী সঙ্গে তৃণমূল দলের দূরত্ব স্পষ্ট। বেশ কিছুদিন ধরেই মমতা ব্যানার্জিকে কার্যত এড়িয়ে চলেছেন শুভেন্দু অধিকারী। মাঝখানে দলও তাকে খুব একটা বেশি পাত্তা দিতে চাইছিল না। তবে বিধানসভা ভোটের আগে এই হেভিওয়েট নেতার সঙ্গে সব দূরত্ব ঘুচিয়ে নিতে চায় তৃনমূল।

বেশ কিছুদিন ধরেই উল্টো পথে চলছেন শুভেন্দু অধিকারী। একের পর এক সভা করে চলেছেন ‘আমরা দাদার অনুগামী’-র মঞ্চে। সেখানে আগের মতো বারবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নামও উল্লেখ করেননি।

এরপরেই শুভেন্দু অধিকারী রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে তৈরি হয়েছিল জোর জল্পনা। তাহলে কি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করতে চলেছে শুভেন্দু! কংগ্রেস ও বিজেপির পক্ষ থেকে খোলা আহ্বান জানানো হয়েছিল শুভেন্দু অধিকারীকে।

এইসবের মাঝেই শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে সমস্ত রকম মনোমালিন্য মিটিয়ে নিতে মাঠে নামেন তৃণমূলের ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোর। শুভেন্দু বাবুর বাড়িতে যান তিনি। শুভেন্দু বাবু তখন বাড়িতে উপস্থিত না থাকায় শিশির অধিকারীর সঙ্গে বৈঠক করেন পিকে।

সম্প্রতি, শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা। সেখানেই শুভেন্দু অধিকারী জানান তার মনমালিন্যের কারণ। বলেন, গত জুলাইয়ে তাকে পর্যবেক্ষকের পদ থেকে হঠাৎ সিদ্ধান্ত নিয়ে সরানো হয়েছে তাতে আপত্তি ছিলো শুভেন্দুর। এর পাশাপাশি তাঁর দাবি, জেলার সাংগঠনিক কাজ স্বাধীনভাবে করতে পারছেন না। হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। পিকে অভিষেক ব্যানার্জি জেলা সংগঠনের তদারকি করছেন তা একেবারেই না পসন্দ শুভেন্দুর। দলের দিকে তাঁর অভিযোগ, তার সঙ্গে কোনি কথা না বলে এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুভেন্দু অধিকারীর সব অভিযোগ জানানো হয়েছে দল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি। তার সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করেই হবে পরবর্তী বৈঠক।

Back to top button