টাইমলাইনভারত

ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেন ছুটবে সমুদ্রের নীচ দিয়ে, এর গভীরতা জানলে হাঁ হয়ে যাবেন

বাংলা হান্ট ডেস্ক: সময়ের সাথে সাথে প্রতিটি ক্ষেত্রেই ব্যাপকহারে উন্নতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। সেই তালিকায় রয়েছে পরিবহণক্ষেত্রও। এমতাবস্থায়, এবার ভারতে বুলেট ট্রেন (Bullet Train) চলাচল শুরু করার বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। জানা গিয়েছে, মুম্বাই (Mumbai) ও আহমেদাবাদের (Ahmedabad) মধ্যে এই বুলেট ট্রেনের পরিষেবা শুরু করা হবে। এমনকি, সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই বুলেট ট্রেন সমুদ্রের নিচ দিয়ে (Undersea Tunnel) সাত কিলোমিটার দীর্ঘ টানেলের মধ্য দিয়ে চলাচল করবে। ইতিমধ্যেই এই প্রজেক্টের জন্য টেন্ডার ডাকা হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে।

২১ কিলোমিটার দীর্ঘ হবে সুড়ঙ্গ: এই প্রসঙ্গে বিভিন্ন মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, মহারাষ্ট্রের মুম্বাই-আমেদাবাদ হাই স্পিড রেল করিডরের জন্য মোট ২১ কিলোমিটার দীর্ঘ টানেল তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে। এই টানেলে সাত কিলোমিটার রাস্তা থাকবে সমুদ্রের তলদেশে। এমতাবস্থায়, দেশে প্রথমবারের মতো সমুদ্রের নিচ দিয়ে এমন একটি টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে। এদিকে, ইতিমধ্যেই মুম্বাই-আহমেদাবাদ হাই স্পিড রেল করিডোরের জন্য টানেল বোরিং মেশিন (TBM) এবং নিউ অস্ট্রিয়ান টানেলিং পদ্ধতি (NATM) ব্যবহার করে প্রায় ২১ কিলোমিটার দীর্ঘ টানেল তৈরিতে National High Speed Rail Corporation Limited (NHSRCL) কর্তৃক টেন্ডার তৈরি করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, মহারাষ্ট্রের বান্দ্রা-কুরলা কমপ্লেক্স আন্ডারগ্রাউন্ড স্টেশন এবং শিলফাটার মধ্যে তৈরি হতে যাওয়া এই টানেলটি থানে খাঁড়িতে সমুদ্রের তলদেশে একটি ৭ কিলোমিটার সুড়ঙ্গ হিসেবে তৈরি হবে। পাশাপাশি এই প্যাকেজের অংশ হিসাবে, টানেলের চারপাশে ৩৭ টি স্থানে ৩৯ টি সরঞ্জাম কক্ষ নির্মাণ করা হবে বলেও জানা গিয়েছে।

গভীরতা ১১৪ মিটার পর্যন্ত হবে: এটাই হবে দেশের প্রথম Undersea Tunnel যেটি ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ২৫ থেকে ৬৫ মিটার পর্যন্ত গভীর হবে। পাশাপাশি, এই টানেলের গভীরতম নির্মাণ পয়েন্টটি হবে শিলফাটার কাছে পারসিক পাহাড় থেকে। সেখানে এর গভীরতা হবে ভূপৃষ্ঠ থেকে ১১৪ মিটার নিচে। অপরদিকে, এই টানেল নির্মাণের জন্য ১৩.১ মিটার ব্যাসের কাটার হেড সহ TBM ব্যবহার করা হবে। মোট তিনটি টানেল বোরিং মেশিন ব্যবহার করে প্রায় ১৬ কিলোমিটার টানেল প্রস্তুত করা হবে। বাকি ৫ কিলোমিটার টানেল প্রস্তুত করতে নতুন অস্ট্রিয়ান টানেলিং পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে বলেও জানা গিয়েছে।

এভাবে চলবে বুলেট ট্রেন: ইতিমধ্যেই ন্যাশনাল হাই স্পিড রেল কর্পোরেশন দ্বারা ৫০৮ কিলোমিটার দীর্ঘ ভারতের প্রথম উচ্চ গতির রেল লাইন, মুম্বাই এবং আহমেদাবাদের মধ্যে নির্মিত হচ্ছে। এর মধ্যে ৩৫২ কিলোমিটার রেল লাইন গুজরাটের নয়টি জেলা এবং মহারাষ্ট্রের তিনটি জেলার মধ্য দিয়ে যাবে। ইতিমধ্যেই আটটি জেলায় এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, এই করিডোরে ১২ টি স্টেশন তৈরি করা হচ্ছে। এমতাবস্থায়, এই প্রকল্পে মোট ১.০৮ লক্ষ কোটি টাকা খরচ হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, বুলেট ট্রেনের গতিবেগ ঘন্টায় ৩২০ কিলোমিটার হবে। যার ফলে মুম্বাই থেকে আহমেদাবাদ যেতে বুলেট ট্রেনের সময় লাগবে মাত্র দু’ঘণ্টা।

Related Articles