fbpx
টাইমলাইনভারত

ব্রহ্মপুত্র নদীর নীচে বানানো হবে চীনের থেকে দীর্ঘ ভারতের প্রথম আন্ডার ওয়াটার টানেল

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ পূর্ব লাদাখের (Ladakh) গালওয়ান উপত্যকার ভারতীয় আর চীনের সেনার মধ্যে হওয়া বিবাদ কমানোর জন্য দুই দেশের মধ্যে গতকাল ১৪ ঘণ্টার ম্যারাথন সৈন্য বৈঠক হয়েছে। আরেকদিকে এই বিবাদের মধ্যে কেন্দ্রের মোদী সরকার (Modi Sarkar) অরুণাচল প্রদেশ থেকে অসম পর্যন্ত সড়ক পরিবহণ মজবুত করার কাজ শুরু করে দিয়েছে। কেন্দ্র সরকার ব্রহ্মপুত্র নদীর (Brahmaputra River) নীচে ১৪.৮৫ কিমি দীর্ঘ টানেল বানানোর মঞ্জুরি দিয়ে দিয়েছে। আপনাদের জানিয়ে দিই যে, দেশে এই প্রথমবার নদীর নীচে বানানো টানেল পূর্ব চীনের তাইহু লেকের নীচে বানানো টানেলের থেকেও দীর্ঘ হবে।

কেন্দ্র সরকার অসমের গোহপুর (NH-54) থেকে নুমালীগড় (NH-37) কে যুক্ত করার জন্য ব্রহ্মপুত্র নদীর নীচে চার লেনের সড়ক টানেল বানানোর মঞ্জুরি দেওয়া হয়েছে। শোনা যাচ্ছে যে, সড়ক পরিবহণ এবং রাজমার্গ মন্ত্রালয়ের জাতীয় হাইওয়ে অবকাঠামো উন্নয়ন কর্পোরেশন লিমিটেড আমেরিকার কোম্পানির তরফ থেকে নদীর নীচে তৈরি করা টানেলের ডিটেল প্রোজেক্ট রিপোর্টকে মঞ্জুরি দিয়েছে। আপনাদের জানিয়ে দিই, আমেরিকার লুইস বার্জার কোম্পানি ব্রম্হপুত্র নদীর নীচে ১৪.৮৫ কিমি দীর্ঘ টানের বানানোর প্রক্রিয়ায় প্রি-ফিজিবিলিটি রিপোর্ট আর ডিপিআর তৈরি করেছে।

এই টানেলের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে যে, এর ভিতর দিতে সৈন্য বাহন আর হাতিয়ার দিয়ে সুসজ্জিত বাহন ৮০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিতে ছুটতে পারবে। এই টানেল আসাম আর অরুণাচল প্রদেশকে যুক্ত করার দিক থেকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ হবে। শোনা যাচ্ছে যে, এই টানেল তৈরি করার জন্য সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে আর ডিসেম্বর মাস থেকে এই টানেলের কাজ শুরু হবে।

পূর্ব চীনের তাইহু লেকের নীচে নির্মাণাধীন সড়ক পরিবহণ টানেলের দীর্ঘতা ১০.৭৯ কিমি। জানিয়ে দিই, তাইহু লেকের নীচে যেই টানেল বানাচ্ছে চীন তাঁর থেকে ভারতের এই টানেল অনেক দীর্ঘ হবে। এবং ভারতের এই টানেলে আসা যাওয়ার জন্য আলাদা আলাদা রাস্তা বানানো হবে। টানেলের ভিতরে যাতে জল না ঢোকে, সেই জন্য সুরক্ষার কড়া ব্যবস্থা করা হবে।

১৪ কিমি লম্বা টানেল বানাতে যত সমস্যা হবে, সেরকম সমস্যা এই টানেল দিয়ে যাতায়াতের জন্যও হবে। উল্লেখ্য, জলের ভিতরের টানেলে হাওয়ার প্রেসার অনেক কম হবে। যদিও এই সমস্যার মোকাবিলার স্বার্থে ভেন্টিলেশন সিস্টেম, ফায়ার ফাইটিং, লাইটিং সিস্টেম আর এমার্জেন্সি এক্সিটের মতো ব্যবস্থা রাখা হবে।

Back to top button
Close