টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘প্রচুর খরচ, রাজ্যপাল পদটাই তুলে দেওয়া হোক’, অবাক দাবি মন্ত্রীর শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের

বাংলাহান্ট ডেস্ক : ‘ভারতের সংবিধান! (Indian Constitution) তার নেই দরকার’, নবান্ন (Nabanna) থেকে ভবিষ্যৎে যদি এমন একটা স্লোগান ওঠে তাহলে অবাক হওয়ার কিছু নেই! কারণ, যে রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী ঘোষণা করেন রাজ্যের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদটাই তুলে দেওয়া হোক সেই রাজ্যসরকারের পক্ষে সব কিছুই সম্ভব। সম্প্রতি পরিষদীয় মন্ত্রী হিসেবে সদ্য দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন বর্ষীয়ান রাজনীতিক শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় (Sobhandev Chatterjee)। মন্ত্রী হয়েই রাজ্যপাল (Governor of State) পদ রাখার প্রয়োজনীয়তা নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিলেন তিনি।

শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এদিন বলে বসেন, ‘রাজ্যপাল পদ রাখার কোনও দরকারই নেই। রাজ্যের (হাইকোর্টের) প্রধান বিচারপতিকেই রাজ্যপালের দায়িত্বভার দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি। তিনি নিরপেক্ষভাবে এই কাজ সামলাতে পারবেন।’ এরই সঙ্গে শোভনদেব আরও বলেন, ‘আমাদের মতো দেশে এক রাজ্যে এক এক দল ক্ষমতায় রয়েছে। ফলে অনেক সময়ই রাজ্যের উন্নয়নের কাজে বাধা দেওয়া হয়। এই নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়। আমার ব্যক্তিগত মত, এই রাজ্যপাল পদটাই তুলে দেওয়া হোক। রাজ্যপালের জন্য প্রচুর খরচ। এই খরচ করার কোনও মানেই হয় না। আমি বিধানসভাতেও এর আগে আমার এই মত জানিয়েছিলাম।’

সাম্প্রতিক সময়ে রাজ্যের প্রাক্তন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে রাজ্য সরকারের সম্পর্কে নানা টানাপোড়েন লক্ষ্য করা যায়। একাধিক বিষয় নিয়ে রাজ্য সরকার – রাজ্যপাল বিবাদ লেগেই থাকত। তৎকালীন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় মাঝেমধ্যেই খোঁচা ট্যুইট করতেন। আর তাতেই একরকম ‘তেলে বেগুনে জ্বলে উঠত’ রাজ্যসরকার। একসময় প্রাক্তন রাজ্যপালের বিরুদ্ধে হাওড়া পুরবিল আটকে রাখার মতো অভিযোগও করে রাজ্যসরকার। এই বিষয় নিয়েও দীর্ঘদিন ধরেই বিবাদ চলেছে রাজ্য ও রাজ্যপালের মধ্যে। সম্প্রতি রাজ্যপালকে রাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলির আচার্য পদ থেকে সরানোর জন্যও বেশ কিছু বিল পাশ করানো হয়েছে রাজ্যবিধানসভায়।

পরিষদীয় মন্ত্রীর এই মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিয়েছে পদ্ম শিবিরও। সোমবার বিকেলে বিজেপি মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য সাংবাদিক বৈঠকে বলেন “রাজ্যপাল পদ তুলে দেওয়ার দাবি করে বামপন্থীরা। পরিষদীয় মন্ত্রী কেন এই কথা বলছেন ? আসলে তৃণমূল রাজভবনটাই দখল করতে চায়।’ পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এই মুহুর্তে দেশের উপরাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের অতিরিক্ত দায়িত্ব সামলাচ্ছেন মণিপুরের রাজ্যপাল লা গণেশন।

Related Articles