টাইমলাইনবিনোদন

কেউ ভয় পান সিলিং ফ‍্যানে, কেউ আবার আরশোলা দেখলেই চিৎকার জোড়েন! অদ্ভূত ফোবিয়ায় ভোগেন সেলেবরা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: কত ধরনের ফোবিয়ার (Phobia) কথাই না শোনা যায়। কেউ ভয় পায় পোকা মাকড়ে, কেউ আবার উঁচু জায়গা, দিগন্ত বিস্তৃত সমুদ্র দেখে ভয় পায়। অত‍্যন্ত অদ্ভূত সব ফোবিয়া বা ভয়ের কথাও শোনা যায় যার বাহারি সব নামও রয়েছে। ফোবিয়ার শিকার মানুষ মাত্রেই হতে পারে। এমনকি সেলিব্রিটিরাও এর ব‍্যতিক্রম নন।

পর্দায় যাদের দুরন্ত অ্যাকশন দৃশ‍্যে অভিনয় করতে দেখেন, ক‍্যামেরার পেছনে তারাই হয়তো কোনো কিছুর কারণে ভয়ে কুঁকড়ে থাকেন। বলিউডের প্রথম সারির তারকারা কে কোন বিষয়ে ভীত তা আর লুকিয়ে থাকবে না। তালিকাটা একবার দেখে নিন চট করে-


দীপিকা পাডুকোন– হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির জনপ্রিয় এবং সফলতম অভিনেত্রী। জানেন কি বলিউডের এই সুন্দরী সাপে ভীষণ ভয় পান। তাই যেকোনো ছবিতে স্বাক্ষর করার আগে তাঁর শর্ত থাকে সাপের সঙ্গে কোনো দৃশ‍্য থাকবে না। এই ফোবিয়ার নাম Ophidiophobia।


আমির খান– বলিউডের মিস্টার পারফেকশনিস্টের মৃত‍্যুতে খুব ভয়। কেউই অমর নয়। একথা আমিরও জানেন। তবুও ভয় তো যায় না। এই বিশেষ ফোবিয়ার নাম Thanatophobia।


ক‍্যাটরিনা কাইফ– মানুষ সাধারণত যে ফোবিয়ায় ভোগে সেটা থেকে দূরে থাকারই চেষ্টা করেন। কিন্তু এক্ষেত্রে ক‍্যাটরিনা ব‍্যতিক্রম। জানেন তিনি কীসে ভয় পান? টমেটো! হ‍্যাঁ, খুব অদ্ভূত হলেও এই ফোবিয়ার নাম Lycopersicoa। অথচ ভয় থাকা সত্ত্বেও ‘জিন্দেগি না মিলেগি দোবারা’ ছবিতে টমেটো নিয়ে একটি দৃশ‍্যে অভিনয় করেছিলেন। তারপর তাঁর ফোবিয়া আরো বেড়ে যায়।


শাহরুখ খান– হ‍্যাঁ, কিং খানও ভয় পান। আর তাঁর ফোবিয়াটাও বেশ অদ্ভূত। দু হাত ছড়িয়ে তাঁর আইকনিক পোজ দেখে কত সহস্র মানুষই না প্রেমে পড়েছেন। কিন্তু শাহরুখের ভয়, পোজের মাঝে যদি কেউ কুচ করে তাঁর হাত দুটো কেটে ফেলে তবে?


রণবীর কাপুর– বলিউডের এই হ‍্যান্ডসাম হাঙ্ক ভয় পান মাকড়সা এবং আরশোলায়। ফোবিয়া দুটির নাম যথাক্রমে Arachnophobia এবং Katsaridaphobia।


আলিয়া ভাট– বলিপাড়ার এই হবু মা অন্ধকারে ভয়ে কুঁকড়ে যান। অনেকেরই এই ফোবিয়াটা আছে যার নাম Nyctophobia।


অর্জুন কাপু্র– শুনলে অবাক হয়ে যাবেন অর্জুন ভয় পান সিলিং ফ‍্যানে। তাঁর বাড়িতে নাকি কোনো সিলিং ফ‍্যান নেই।


সোনম কাপুর– অভিনেত্রীর ফোবিয়াও বেশ কমন। তিনি বদ্ধ জায়গায় থাকতে ভয় পান। লিফটে একটি শট দিতে গিয়ে নাকি ৫ ঘন্টা লাগিয়েছিলেন তিনি। ফোবিয়াটির নাম Claustrophobia।

Related Articles