টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

বিজেপি তৃণমূল এক নয়, এই তত্ত্বে এবার অফিসিয়াল সীলমোহর দিল আলিমুদ্দিন

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বিধানসভা নির্বাচনের আসনের নিরিখে এই মুহূর্তে শূন্য ৩৪ বছর বাংলায় রাজ করা সিপিআইএম (CPIM)। এগারোর পর ষোলোতেও কার্যত বিপুল ধাক্কা খেয়েছিল বাম। আর তারপরই বঙ্গ রাজনীতিতে ক্রমশ বিজেপির উত্থান আরও প্রসারিত হয়। গত পাঁচ সাত বছর ধরে তৃণমূল (TMC) এবং বিজেপিকে (BJP) একযোগে বিজেমূল বলে আক্রমণ করে আসছে সিপিআইএম। তবে এই তত্ত্ব যে ভুল ছিল একুশের নির্বাচনের পর তা কার্যত এক প্রকার স্বীকার করে নিয়েছেন দলের বরিষ্ঠ নেতারা। এবার আনুষ্ঠানিকভাবে তাতেই সীলমোহর পড়তে দেখা গেল দল তরফে।

৫ আগস্ট সিপিআইএম পার্টি তৈরীর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণকারী মুজাফফর আহমেদের জন্মদিন। এর আগেও এই দিনে নানাবিধ কর্মসূচি পালন করে এসেছে সিপিআইএম। প্রতিবছরের মতো এবছরও এই দিনটিকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে তারা। তবে এবার এই দিন উপলক্ষে শাখায় শাখায় পাঠচক্রের আয়োজন করতে চলেছে পার্টি। সেই পাঠচক্রের কথা মাথায় রেখেই আলিমুদ্দিন স্ট্রিট তরফে ইতিমধ্যেই একটি নোট পাঠানো হয়েছে প্রতিটি জেলা নেতৃত্বের কাছে। কার্যত এই নোটেই বিজেমূল তত্ত্ব যে সম্পূর্ণ ভুল ছিল তাতে সীলমোহর দিয়েছে দল।

এই নোটে সিপিআইএম তরফে লেখা হয়েছে, “বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেস বিষয়ে পার্টির অবস্থান নিয়ে বেশ কিছু স্লোগান বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে। পার্টির কর্মসূচিগত বোঝাপড়া অনুযায়ী, বিজেপি ও অন্য কোনও রাজনৈতিক দল এক নয়। কারণ বিজেপিকে পরিচালনা করে ফ্যাসিবাদী আরএসএস। এটাই পার্টির বোঝাপড়া, কিন্তু নির্বাচনের সময় কোথাও কোথাও বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে তৃণমূল এবং বিজিপির সমান।”

অর্থাৎ কার্যত বাম যে এবার বিজেমূল তত্ত্ব থেকে সরে আসছে, এ নিয়ে কোন সন্দেহ নেই। একই সঙ্গে সংযুক্ত মোর্চা সম্পর্কেও এই নোটে বেশকিছু মন্তব্য রয়েছে। জানানো হয়েছে, সংযুক্ত মোর্চা থেকে সরে আসছে না সিপিআইএম। তবে সংযুক্ত মোর্চা থাকবে কিনা তা সিদ্ধান্ত নেবে শরিক দলগুলি। একই সঙ্গে ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে ১৮ টি আসন খোয়ানোর পর যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল তারও উল্লেখ রয়েছে এই নোটে। এই ঘুরে দাঁড়ানোর পিছনে দুয়ারে সরকার এবং দিদিকে বল কর্মসূচির ভূমিকার কথাও জানানো হয়েছে। সাথে সাথে এও স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে, ২০০৮ সাল থেকে কার্যত যে ভাঙন শুরু হয় সিপিআইএমের, তা নিয়ে গত ১৩ বছরেও সঠিক বিশ্লেষণ করতে পারেনি নেতৃত্ব।

cpim supporters voted for tmc to stop BJP: Surjya Kanta Mishra

এই নোটের পর অনেকেই যেমন মনে করছেন, বাম নেতৃত্বের বক্তব্য স্ববিরোধিতায় পরিপূর্ণ। তেমনই আবার অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক মনে করছেন, প্রধান শত্রু চিনতে যে ভুল একুশের বিধানসভা নির্বাচনে করেছিল সিপিআইএম, তা অনেকটাই শুধরে নেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে এই নোটে।

 

Related Articles

Back to top button