টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

‘বিজেপির মিছিলে অ্যাটাক করে দে’, প্রকাশ্যে তৃণমূল বিধায়কের হুমকি, ভাইরাল ভিডিও

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ গত শুক্রবার শিক্ষক নিয়োগ সংক্রান্ত দুর্নীতির প্রতিবাদে চুঁচুড়ার (Chinsura) খাদিনা মোড়ে একটি মিছিল বের করে বিজেপি (BJP)। পরবর্তীতে সেই মিছিলকে লক্ষ্য করে হামলা চালাতে দেখা যায় তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদারকে (Asit Majumdar), যা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়। যদিও বিধায়কের তরফ থেকে পাল্টা বিজেপির দিকে একাধিক অভিযোগ ছুড়ে দেওয়া হয়। তবে এবার এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও উঠে এল সোশ্যাল মিডিয়ায়, যেখানে বিজেপির মিছিলে হামলা চালানোর নির্দেশ দিতে শোনা গিয়েছে তৃণমূল বিধায়ককে। সম্প্রতি এই ভিডিওটি শেয়ার করেন বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)।

গত শুক্রবার চুঁচুড়ায় বিজেপির মিছিলে আচমকাই লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে বসেন অসিত মজুমদার। অভিযোগ, সেই সময় বিজেপি জেলা সহ-সভাপতি রাজীব নাগকে মারধর করা হয়। যদিও এই ঘটনা প্রসঙ্গে পরবর্তীতে তৃণমূল নেতা জানান, “মিছিল থেকে আমাকে ‘চোর’ বলে কটাক্ষ করছিল বিজেপি। একই সঙ্গে আমাদের মহিলাদের বিরুদ্ধে একের পর এক কটূ বাক্য ব্যবহার করে ওরা।” তবে এর পরেই বিজেপি পাল্টা দাবি করে, “ওনার কোন অভিযোগ থাকলে স্থানীয় থানায় গিয়ে এফআইআর দায়ের করতে পারতেন। এরকম লাঠি নিয়ে হামলা করার কারণ কি?”

বর্তমানে অবশ্য এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠল বঙ্গ রাজনীতি। এদিন দিলীপ ঘোষ একটি ভিডিও শেয়ার করেন, যেখানে বিজেপির মিছিলে আক্রমণ করার নির্দেশ দিতে দেখা গিয়েছে অসিত মজুমদারকে। ভিডিওয় নিজের দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “মিছিল আরম্ভ কর। যেখানে বিজেপির ইয়ে আছে, অ্যাটাক করে দে। যেখান থেকে পারিস, মিছিল শুরু কর।”

এই ভিডিওটি শেয়ার করে তৃণমূল বিধায়ক এবং রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দেন দিলীপ ঘোষ। তিনি লেখেন, “তৃণমূল বিধায়ক অসিত মজুমদারের ঔদ্ধত্য আমরা আগেও দেখেছি, আবারও দেখলাম! তৃণমূল মানেই গণতন্ত্র পরিপন্থী, তৃণমূল মানেই গুণ্ডামি, রাজনৈতিক সন্ত্রাস, দুর্নীতির জীবন্ত স্বরূপ! এবার ওনার নেত্রী নির্ঘাত ওনাকে পুরস্কৃত করবেন!”

এই ভিডিওটি ঘিরে ইতিমধ্যে সরগরম গোটা নেটমাধ্যম। এক ব্যক্তি লেখেন, ”সাধারণ আপামর জনসাধারণের উচিত জোটবদ্ধভাবে চলমান সরকার তথা এই দলটির বিপুল পরিমাণ টাকা লোপাটের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগঠিত করা। তাহলেই অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলিও এই ধরণের বিপুল অঙ্কের টাকা আত্মসাৎ করার আগে দু’বার ভাববে। গরিব, মেহনতি মানুষ, সাধারণ নিম্নবিত্ত, সাধারণ মধ্যবিত্ত, প্রভৃতি সমস্ত শ্রেণির মানুষের ঘাম ঝরানো এইসব টাকা। দুর্বৃত্তপরায়ন রাজনৈতিক দলগুলোর কোনও অধিকার নেই নয়ছয় করার।”

Related Articles