টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরেসিপি

ওদের হয়ত শালা-জামাইবাবু সম্পর্ক”, তৃণমূল নেতার চড় কাণ্ড নিয়ে বললেন মদন মিত্র

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বঙ্গে শুরু হয়ে গেছে পঞ্চায়েত ভোটের (Panchayat Vote) তোড়জোড়। বলাইবাহুল্য সেই তোড়জোড় সর্বাধিক পরিলক্ষিত হচ্ছে শাসকদলের ক্ষেত্রেই। ভোট পূর্বে সাধারণ মানুষের দুয়ারে পৌঁছে যেতে মমতা সরকারের নয়া উদ্যোগ ‘দিদির সুরক্ষাকবচ’। তৃণমূল সুপ্রিমোর প্রণিত দূতেরা আম জনতার সমস্যা নিরসনে পৌঁছে যাচ্ছেন তাঁদের দুয়ারে। আর সেই কর্মসূচিতেই গতকাল এক বেনজির ঘটনা ঘটে উত্তর ২৪ পরগনার ইছাপুরের নীলগঞ্জে। রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষের সামনেই এক বিজেপি (BJP) কর্মীকে সপাটে চড় মারার অভিযোগ ওঠে স্থানীয় তৃণমূল নেতার (TMC Leader) বিরুদ্ধে। এবার সেই ইস্যুতেই মন্তব্য করলেন মদন মিত্র (Madan Mitra)।

একদিকে যখন এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তুঙ্গে রাজনৈতিক তরজা, বিরোধীদের অভিযোগের তীর শাসকদলের দিকে, ঠিক সেই সময়ই এই চড় কাণ্ডকে একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে আখ্যা দিলেন কামারহাটির তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক মদন মিত্র। তাঁর কথায় তৃণমূলের কোটি কোটি সমর্থকেরা ভলেন্টিয়ার হিসেবে কাজে নেমেছেন, তাই এটি একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা।

এদিন ঘটনা প্রসঙ্গে ঠিক কী বললেন কামারহাটির বিধায়ক?‌ রবিবার অশোকনগরে (Ashoknagar) সবলা মেলা উৎসবে পৌঁছান মদন মিত্র। সেখানে তাঁকে চড় কাণ্ড নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিঁনি বলেন, ‘‌এই মুহূর্তে তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থক কম করে হলেও ৮ কোটি। তৃণমূল কংগ্রেস পার্টি করে কমপক্ষে ৫ কোটি। ভলেন্টিয়ার নেমেছে সাড়ে তিন লাখে। তাই এটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। খবর নিলে দেখা যাবে যে যাকে চড় মেরেছে, ওদের হয়তো জামাইবাবু ও শালার সম্পর্ক। দু’‌জনের মধ্যে ব্যক্তিগত কোনও কারণ থাকতে পারে। এটা দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে বিচার করলে হবে না।’‌

madan mitra

তাঁর আরও সংযোজন, ‘‌তৃণমূল কংগ্রেসকে বিচার করতে হবে জি–২০ দিয়ে, গঙ্গাসাগর মেলা দিয়ে,বাংলার সুরক্ষা কবচ দিয়ে। দিদির সুরক্ষা কবচ হল, বিখ্যাত হিন্দি ছবি শোলের কয়েনের মতো। দু’‌দিকেই হেড ছিল। এর আগে স্লোগান দেওয়া হতো, গদ্দার সরকার আর নেই দরকার। সিপিএমের লুটেরার সরকার আর নেই দরকার। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, মা বোনেরা বলুক আপনাদের কি দরকার। সেই দাবি মেনেই এই তো দরজায় হাজির দুয়ারে সরকার। পরে আমরা ভাবলাম মানুষের কষ্ট কমাতে হবে। তাই আবার নয়া পদক্ষেপ দিদির। এবার আর ঘর থেকে বের হতে হবে না। ঘরে বসে শুধু অ্যাপটা খুলুন। বিজেপির ভূত নয় দিদির দূত। তাহলেই মুশকিল আসান।’‌

Related Articles