টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গবিধানসভা নির্বাচন

বিজেপির ফাঁস করা অডিও’র সত্যতা কার্যত স্বীকার করল তৃণমূল, দিল সাফাইও

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তিন নম্বর ফোন কল ফাঁস করল বিজেপি। প্রথমটি বিজেপির নেতা প্রলয় পাল আর মুখ্যমন্ত্রীর কথোপকথন, দ্বিতীয়টি ওই দিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তৃণমূল সাংসদ চৌধুরীমোহন জাটুয়ার কথোপকথন, এবং তৃতীয়টি তৃণমূল প্রার্থী পার্থপ্রতিম রায় এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথোপকথন। বলে রাখি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই স্বীকার করেছিলেন যে তিনি বিজেপি নেতা প্রলয় পালকে ফোন করে সাহাজ্য চেয়েছিলেন।

তবে দ্বিতীয় অডিও টেপের সত্যতা স্বীকার করা হয়নি তৃণমূলের পক্ষ থেকে। এবং তৃতীয় অডিও টেপের সত্যতা কার্যত স্বীকার করে নিল তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা। তবে তাঁরা প্রশ্ন তুলছে, বারবার মুখ্যমন্ত্রীর ফোন কল কীভাবে ফাঁস হচ্ছে? বলে রাখি, প্রথম ফোন কলটি বিজেপি নেতা প্রলয় পালই সর্বসমক্ষে এনেছিলেন। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ফোন কল বিজেপির তরফ থেকে প্রকাশ্যে আনা হয়েছে। তবে শেষ দুটি ফোন কল রেকর্ডিং বিজেপির নেতারা কোথা থেকে পেলেন, সেই নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা।

গতকালই মুখ্যমন্ত্রী একটি দৈনিক বাংলা সংবাদমাধ্যমে অভিযোগ করে বলেছিলেন যে, ওনার ফোন ট্যাপ করা হচ্ছে। আর ওনার ফোন ট্যাপ করার জন্য কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলো ইজরায়েল থেকে ম্যাশিন নিয়ে এসেছে। এখন প্রশ্ন উঠছে যে, মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ কি তাহলে সত্য? যদিও আমাদের পক্ষে বিজেপির দ্বারা ফাঁস করা কোনও অডিওরই সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

আরেকদিকে, বিজেপির তরফ থেকে এই অডিও ক্লিপ ফাঁস করার পর তৃণমূল নেতা ডেরেক ওব্রায়েন এবং সুখেন্দুশেখর একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন। ওই সাংবাদিক বৈঠকে ওনারা বলেন যে, ‘আমাদের দলের নেত্রী দলের প্রার্থীর সঙ্গে কথা বলতেই পারেন এতে আপত্তির কি আছে?” ওনারা জানান, তৃণমূল নেত্রী শীতলকুচিতে ঘটে যাওয়া কাণ্ডের কথা জানতেন না, আর সেই কারণে তিনি পার্থপ্রতিমের কাছে ফোন করে ঘটনার বিবরণ নেন।

আরেকদিকে বিজেপি সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেছে যে, অডিও টেপে এটা স্পষ্ট হচ্ছে যে শীতলকুচির ঘটনায় তৃণমূলের ষড়যন্ত্র রয়েছে। এই অডিও টেপ প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা অমিত মালব্য বলেন, ‘শীতলকুচির বুথে হামলাকারীদের নিজেদের লোক বলে উল্লেখ করেছেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি। ওই অডিও টেপে এটাও স্পষ্ট ছিল যে, মৃতদেহ গুলো নিয়ে মিছিল করার উদ্দেশ্য ছিল মুখ্যমন্ত্রীর।”

অমিত মালব্য অভিযোগ করে বলেন যে, ‘১০ বছরের মুখ্যমন্ত্রীর এরকম মানসিকতা দেখে অবাক লাগছে। এমনকি যারা ভোট লুঠ করতে গিয়েছিল, তৃণমূল তাঁদের পাশেই দাঁড়াচ্ছে। তৃণমূল নেত্রীর মৃতদেহ নিয়ে মিছিল করার পরিকল্পনা ছিল, আর সেটা হলে রাজ্যে চরম অশান্তি ছড়িয়ে পড়ত। ওনার ভয়াবহ মানসিকতা প্রকাশ পেয়েছে এই অডিও টেপে।”

আরেকদিকে, তৃণমূলের মুখপাত্র তাপস রায় সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, ‘অমিত মালব্য ভুয়ো ভিডিও আর অডিও ছাড়ার জন্য কুখ্যাত। শীতলকুচির ঘটনার জাল অডিও বানিয়ে এদিন উনি নেটমাধ্যমে ছেড়েছেন।”

Back to top button