টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গভারত

পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারালেন বিজেপির যুব মোর্চার দুই সক্রিয় কর্মী, আক্রোশিত বিজেপি নেতারা

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ ফের উত্তপ্ত হল আমডাঙ্গা (Amdanga)। এবার ভারতীয় জনতা পার্টির (BJP) যুব মোর্চার দুই সক্রিয় কর্মীকে গুলি করে মারার অভিযোগ উঠল এক পুলিশ কর্মীর বিরুদ্ধে। গুলি লাগার সাথে সাথে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও, প্রাণে বাঁচলেন না তারা। অভিযুক্ত পুলিশ কর্মী শনিবার বিধাননগর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পনও করেছেন।

সম্পত্তির জেরে এই খুন, অনুমান
উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার আমডাঙ্গা অঞ্চল বেশ কয়েকটি অসামাজিক কাজকর্মের কারণে অনেক বার সংবাদের শিরোনামে উঠে এসেছিল। কিছুদিন স্তব্ধ থাকার পর, এই করোনা (COVID-19) আতিঙ্কের মধ্যেই ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল আমডাঙ্গা। অভিযোগ উঠেছে পারবারিক সম্পত্তির জেরে কাকাতো ভাই পুলিশকর্মী সন্তোষ পাত্র গুলি করে খুন করলেন ৩২ বছর বয়সী সুমন্ত মন্ডল এবং ২৮ বছর বয়সী অরূপ মন্ডলকে।

ঘটনার বিবরণ
ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার রাতে সাড়ে দশটা নাগাদ। পাড়ার এক চায়ের দোকানে বসে চা খাচ্ছিলেন মৃত দুই ভাই এবং তাঁদের বাবাও। আচমকাই অন্ধকার ভেদ করে তাঁদের লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে আসে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই, গুলি লাগে তাঁদের শরীরে। তৎক্ষণাৎ বারাসাত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁদের। একজন কিছুক্ষণ বেঁচে থাকার পর মারা গেলেও, অপরজন ঘটনাস্থলেই মারা যায় বলে জানান চিকিৎসকরা। ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়ায় সমগ্র এলাকায়।

ঘটনাস্থলে যান বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং
এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে ব্যারাকপুর বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেছেন, কিভাবে একজন পুলিশ কর্মী তাঁর সার্ভিস রিভলভার বাড়িতে নিয়ে আসেন? ওই পুলিশকর্মীর শাস্তির দাবী তোলেন সাংসদ। এবং আমাডাঙ্গায় থাকা অন্যান্য অসামাজিক কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদেরকেও গ্রেপ্তার করতে বলেন।

মৃতেদের পরিবারকে এবং আহতকে আর্থিক ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করা হয়
মৃতদের পরিবারের সঙ্গে কথা বলার পর বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং (Arjun Singh) সাংবাদিকদের জানান, মৃতদের পরিবার প্রতি ৫ লক্ষ টাকা করে এবং আহত ব্যক্তিকে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেবার ব্যবস্থা করা হবে।

Back to top button