আন্তর্জাতিকটাইমলাইন

সদ্যোজাত সন্তান প্রথম পা রাখবে নিজের জন্মভূমির মাটিতে, ১৪০০০ টাকা দিয়ে মাটি নিয়ে এলেন বাবা

বাংলাহান্ট ডেস্ক: ‘খাঁটি সোনার চেয়ে খাঁটি আমার দেশের মাটি’, কবি নজরুল ইসলামের সেই বিখ্যাত গানের লাইন যেন এই ঘটনার সঙ্গে হুবহু মিলে যায়। শুধু পার্থক্য একটাই। নজরুল গানটি লিখেছিলেন নিজের দেশ ভারতবর্ষের জন্য, আর এই ঘটনা সাত সমুদ্র তেরো নদীর পারের দেশ আমেরিকার। ঘটনাটি গত বছরের। কিন্তু একইরকম নজিরবিহীন হয়ে রয়েছে এই সময়েও। সদ্যোজাত সন্তান জন্মের পর প্রথম পা রাখবে নিজের জন্মভূমির মাটিতে। তাই বাবা ১৪০০০ টাকা দিয়ে নিয়ে এলেন সেই মাটি।

আমেরিকান প্যারাট্রুপার সেনাবাহিনীর জওয়ান টনি ট্রাকোনি চেয়েছিলেন যখনই তাঁর সন্তানের জন্ম হবে তা যেন তাঁর জন্মভূমি অর্থাৎ ইউএসের মাটিতেই হয়। কিন্তু তাংর স্ত্রী যখন অন্তঃসত্ত্বা হন তখন তিনি কর্মসূত্রে ইতালির পাডুয়াতে। তাও ভেবেছিলেন সন্তানের জন্মের আগেই ফিরে আসবেন নিজের জন্মভূমিতে। কিন্তু অচিরেই তিনি বুঝলেন যে সেটা সম্ভব নয়। তাই এক অভিনব পন্থা বের করলেন টনি। কুরিয়ারের মাধ্যমে নিজের জন্মভূমি টেক্সাসের মাটি ইতালিতে নিয়ে চলে এলেন।

অবশ্য এর জন্য বেশ কাঠখড় পোড়াতে হয়েছিল টনিকে। বাবা-মা থাকেন টেক্সাসে। তাঁদের থেকেই মাটি চেয়ে পাঠালেন টনি। ২০০ ডলার অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় ১৪০০০ কোটি টাকা খরচ করে কুরিয়ারের মারফত ইতালিতে নিয়ে এলেন সেই মাটি। স্ত্রী যখন হাসপাতালের বেডে সন্তান জন্ম দিচ্ছেন তখন সবার অলক্ষ্যে বেডের তলায় রেখে দিলেন মাটি। সন্তানের জন্ম হল তাঁর জন্মভূমির মাটিতে।

এরপরেও সেই মাটি রেখে দিয়েছিলেন টনি। সন্তান যখন একটু বড় হল প্রথমবার তাকে জন্মভূমির মাটিতেই পা রাখালেন। টনির কথায়, সন্তানকে প্রথমবার জন্মভূমির মাটিতে পা রাখানোর জন্য সবকিছুই করতে রাজি ছিলেন তিনি। এই পোস্ট প্রকাশ্যে আসতেই ভাইরাল হয়ে যায়। জন্মভূমির প্রতি এই ভালবাসা ও শ্রদ্ধা দেখে সকলেই প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন টনিকে।

Back to top button