টাইমলাইনভারত

আবারও হাথরস কাণ্ডের পুনরাবৃত্তি উত্তরপ্রদেশে! গণধর্ষণের শিকার হয়ে মারা গেলেন ২২ বছরের যুবতী

বাংলাহান্ট ডেস্কঃহাথরসের (Hathras) তরুণীর চিতার আগুন ঠান্ডা না হতে হতেই, আবারও একই ঘটনার সম্মুখীন হল উত্তরপ্রদেশবাসী (Uttarpradesh)। আবারও প্রকাশ্যে এল গণধর্ষণের ঘটনা। গণধর্ষণের শিকার ২২ বছরের এক যুবতী। গোটা দেশ যখন হাথরসের তরুণীর দোষীদের শাস্তির দাবীতে তোলপাড় হয়ে উঠেছিল, তখন সকলের অলক্ষ্যেই হাথরস থেকে মাত্র ৫০০ কিমি দূরে ২২ বছরের এক যুবতীকে গণধর্ষণের শিকার হতে হয়।

২৯ শে সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ঘটমান এই ঘটনায় ওই যুবতীকে লখনউ হাসপাতাল নিয়ে যেতে যেতে পথেই তাঁর মৃত্যু হয়। তবে শেষবেলায় সে তাঁর মাকে জড়িয়ে ধরে বার বার কাতর স্বরে বলছিলেন, ‘মা আমি বাঁচতে চাই, আমি মরতে চাই না’।

ঘটনার বিষয়ে নির্যাতিতার মা জানিয়েছেন
নির্যাতিতার মা জানিয়েছেন, ‘ঘটনার দিন সন্ধ্যায় ওই যুবতী বাড়ি না ফেরায় তাঁর পরিবার পুলিশের কাছে রিপোর্ট করি। তারপর একজন রিক্সাওয়ালা আমার মেয়েকে অচৈতন্য অবস্থায় বাড়ির সামনে ফেলে দিয়ে যায়। মেয়ে দাঁড়াতেও পারছিল না। ওর সারা গায়ে আঘাতের চিহ্ন ছিল। ওকে শয়তানরা একটি নেশার ইনজেকশন প্রয়োগ করে অজ্ঞান করে, ওর সর্বনাশ করে দেয়। ওকে নির্মমভাবে মারধরও করে শয়তানগুলো। আমার মেয়েটা খুব কষ্ট পাচ্ছিল, ও বাঁচতে চাইছিল’।

স্থানীয়দের সূত্র
স্থানীয়রা জানিয়েছে, ওইদিন সন্ধ্যায় ওই যুবতীকে রিক্সা করে বাড়িতে কারা যেন ফেলে দিয়ে যায়। ওর সারা শরীরে আঘাতের চিহ্ন ছিল। পেটে ব্যাথা এবং জ্বালা করছিল বলেও জানিয়েছিল তারা। তখন ওই যুবতীকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে লখনউ হাসপাতাল রেফার করা হয়। কিন্তু হাসপাতালে যাওয়ার পথেই মারা যায় ওই যুবতী।

তদন্তে নেমেছে পুলিশ
মৃতদেহের ময়নাতদন্তের পর দেহ দাহ করার জন্য পরিবারের হাতে তুলে দেয় পুলিশ। এখনও অবধি এই ঘটনায় দুজন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তদন্ত চলছে, দোষীদের খুব শীঘ্রই খুঁজে বের করা হবে বলে জানানো হয়েছে পুলিশের তরফ থেকে।

Back to top button