টাইমলাইনভিডিও

তিন তিনটি বিষধর কোবরা নিয়ে কেরামতি, ভয়ঙ্কর পরিণতি হল যুবকের! হাড়হিম করা ভিডিও ভাইরাল

বাংলাহান্ট ডেস্ক : কেরামতি দেখাতে গিয়ে বিষধর কোবরার ছোবল খেলেন যুবক। কর্ণাটকের সিরসির বাসিন্দা তিনি। মাজ সঈদ নামের ওই যুবক তিনটি কোবরা সাপ নিয়ে কেরামতি দেখাচ্ছিলেন। একটি কোবরা তাঁকে হঠাৎই আক্রমণ করে বসে। যুবকের হাঁটুতে ছোবল মারে সাপটি। সাপের ছোবল খেয়ে সঈদ ভর্তি হন হাসপাতালে। সাপের ছোবল মারার ভিডিও সোশাল মিডিয়ায় রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গিয়েছে।

জানা গেছে, সঈদের একটি ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। চ্যানেলটি একই রকম ভিডিওতে পূর্ণ। তবে তার সাম্প্রতিক স্টান্টটি একটি ভয়ঙ্কর পরিণতিতে শেষ হয়। যখন হঠাৎ একটি সাপ তাঁকে কামড় দিয়েছিল। অনলাইনে ভাইরাল হওয়া ফুটেজে দেখা যাচ্ছে সাপটি স্টান্টম্যানের দিকে রাগে ফোঁসফোঁস করতে করতে হাঁটুতে কামড় দিচ্ছে। সাপটি সঈদের হাঁটুতে বেশ কিছক্ষণ কামড়ে ধরেছিল। কামড় ছাড়াতে সঈদকে সাপের লেজ ধরে টানাটানি করতেও দেখা যায় ভিডিওটিতে।

ট্যুইটারে ভিডিওটি শেয়ার করে মাজ সঈদের সমালোচনা করেছেন ইন্ডিয়ান ফরেস্ট সার্ভিস অফিসার সুশান্ত নন্দা। তিনি লিখেছেন, ‘কোবরা সাপ খুব ভয়ানক জিনিস।এটিকে সামলানোর প্রায় অসম্ভব। সাপ নড়াচড়াকে হুমকি হিসাবে বিবেচনা করে এবং নড়াচড়াকে অনুসরণ করে। মাঝে মাঝে এর প্রতিক্রিয়া মারাত্মক হতে পারে।’

বলিউডের শহরের ধাবেরি-র বালকিপুরি অঞ্চলে বাড়িতে বসে পরিবারের সঙ্গে বসে ব্রেকফাস্ট করছিলেন সেই মহিলা। কিন্তু বন্যায় ভেসে আসা এক বিষাক্ত সাপ লুকিয়ে ছিল মহিলার ঘরে।

মাজ সঈদ যেখানে অসচেতন ভাবে সাপের ছোবল খেলেন সেখানে মুম্বাই-র এক মহিলা কি অসাধরন বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন শুনুন সেই কাহিনীও। বলিউডের শহরের ধাবেরি-র বালকিপুরি অঞ্চলে বাড়িতে বসে পরিবারের সঙ্গে বসে ব্রেকফাস্ট করছিলেন সেই মহিলা। কিন্তু বন্যায় ভেসে আসা এক বিষাক্ত সাপ লুকিয়ে ছিল মহিলার ঘরে।

আর তাই সেই মহিলা বিষাক্ত সাপটিকে লাফিয়ে গিয়ে ধরে ফেলেন। পরিবারের সবাই রে রে করে ওঠেন। সাপটিও পাল্টা কামড় দেয় মহিলাকে। কিন্তু মেয়ের জীবন বাঁচাতে তাতে পিছু পা না হয়ে, সাপটিকে না ছেড়ে নিজের সঙ্গে নিয়ে সামনের হাসপাতালে যান সেই মহিলা। যে ট্যাক্সিতে চড়ে মহিলা তার মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে যান, সেটা দেখে সবাই অবাক। কারণ সেখানে বিষাক্ত সাপকে ঝুলিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন সেই মহিলা। হাসপাতালে গিয়ে সেই মহিলা হাসপাতাল কর্মীদের হাতেই সাপটি তুলে দেন।

মহিলার উপস্থিত বুদ্ধির কারণে বিপদ কাটিয়ে ওঠে তার মেয়ে। সেই মহিলার দেহ থেকেও সাপের বিষ বের করা হয়। ডাক্তাররা জানান, সাপটিকে সঙ্গে নিয়ে আসায় চিকিৎসায় দ্রুততা আসে।

Related Articles

Back to top button