আজ বাংলায় উপনির্বাচন! মানিকতলা থেকে বাগদা, কোন আসনে পাল্লা ভারী কার?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা ভোট সম্পন্ন হয়েছে সবে এক মাস। এর মধ্যে রাজ্যে ফের ভোটের দামামা। বুধবার বাংলার চারটি বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন (Bengal By Polls) রয়েছে। মানিকতলা, বাগদা, রানাঘাট দক্ষিণ এবং রায়গঞ্জে ভোট রয়েছে আজ। ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ পর্ব। কোন কেন্দ্রে কার পাল্লা ভারী? এখন সেটা নিয়ে চলছে জোর চর্চা।

বাংলার চার বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন (Bengal By Polls)

একুশের বিধানসভা ভোটের (West Bengal Assembly Election) নিরিখে যদি বলা হয়, তাহলে এই চার আসনের মধ্যে তিনটিতেই জয়ী হয়েছিল বিজেপি। শুধুমাত্র মানিকতলায় (Maniktala) ঘাসফুল ফুটেছিল সেবার। তবে ২০২২ সালে মানিকতলার বিধায়ক সাধন পাণ্ডে প্রয়াত হন। তবে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে মানিকতলার পদ্ম প্রার্থী কল্যাণ চৌবের একটি মামলার কারণে এতদিন এখানে ভোট হয়নি। তিনি এই বছর ইলেকশন পিটিশন প্রত্যাহার করে নেওয়ায় উপনির্বাচন হচ্ছে।

এবারের ভোটে BJP-র তরফ থেকে মানিকতলায় ফের দাঁড় করানো হয়েছে কল্যাণকে। অন্যদিকে TMC-র বাজি প্রয়াত সাধন পাণ্ডের স্ত্রী সুপ্তি। অন্যদিকে বাগদা (Bagdah), রায়গঞ্জ (Raiganj) এবং রানাঘাট দক্ষিণ (Ranaghat Dakshin)- এই তিন বিধানসভা আসনের BJP বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। MLA পদে ইস্তফা দিয়ে লোকসভা ভোটে প্রার্থী হন। তবে টিকিট পেলেও জয়ের মুখ দেখতে পারেননি কেউই।

আরও পড়ুনঃ ‘বন্ধ করতে হবে…’! পতঞ্জলির ১৪টি পণ্য নিয়ে বিরাট নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের, বিপাকে বাবা রামদেব?

লোকসভা ভোটে পরাজিত হলেও রানাঘাট দক্ষিণ এবং রায়গঞ্জে মুকুটমণি অধিকারী এবং কৃষ্ণ কল্যাণীর ওপর আস্থা রেখেছে TMC শিবির। অন্যদিকে বাগদা থেকে দাঁড় করানো হয়েছে মতুয়া ঠাকুর পরিবারের কন্যা মধুপর্ণা ঠাকুরকে। এই আসনে বিজেপি টিকিট দিয়েছে বিনয় কুমার বিশ্বাসকে। রানাঘাট দক্ষিণ এবং রায়গঞ্জ থেকে দাঁড় করানো হয়েছে যথাক্রমে মনোজ কুমার বিশ্বাস এবং মানস কুমার ঘোষকে।

Bengal By Polls tmc and bjp flags

একুশের বিধানসভা ভোটে বাগদা, রায়গঞ্জ এবং রানাঘাট দক্ষিণ এই তিন কেন্দ্রেই বাজিমাত করেছিল BJP। অন্যদিকে মানিকতলায় জয় ছিনিয়ে নিয়েছিল TMC। এবারের ভোটে (Bengal By Polls) কোন আসনে কে বাজিমাত করল তা জানার জন্য আগামী ১৩ জুলাই অবধি অপেক্ষা করতে হবে। সেদিনই প্রকাশিত হবে ভোটের ফলাফল।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর