শিলিগুড়ি স্টেশনের নাম বদলে ‘বাঘা যতীন”-র নামে রাখার আর্জি, রেলমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন BJP বিধায়ক

বাংলাহান্ট ডেস্ক : এবার শিলিগুড়ি টাউন রেলওয়ে স্টেশনের নাম বদলের দাবি তুললেন শিলিগুড়ির বিজেপি বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ। এই মর্মে রেলমন্ত্রীর কাছে একটি চিঠিও দিয়েছেন তিনি। সেই চিঠিতে ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে বিপ্লবী বাঘা যতীনের অবদানের কথা উল্লেখ করে এই স্টেশনটির নামকরণ তাঁর নামে করার আবেদনই জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে শিলিগুড়ি টাউন স্টেশনটিকে হেরিটেজ স্টেশন ঘোষণা করার দাবিও করেছেন এই বিজেপি বিধায়ক।

   

রেলমন্ত্রীকে লেখা সেই চিঠিতে তিনি বলেন, ‘ স্বাধীনতার পূর্বের এবং পরবর্তী সময়ের ইতিহাসের মাঝখানে বসে থাকা এই স্টেশনটির একটি বড় ধরনের সংস্কার প্রয়োজন। এই গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনটি যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়, বাঘা যতীন, রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর, আশুতোষ মুখোপাধ্যায় এবং এমনকি জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীকেও দর্শনার্থী হিসেবে দেখেছে। এ বছর আমাদের স্বাধীনতার ৭৫তম বছর পালিত হচ্ছে। ঐতিহাসিক, কিন্তু অবহেলিত এই স্টেশনের গৌরব ফিরিয়ে আনার জন্য এর চেয়ে উপযুক্ত উপলক্ষ আর হতে পারে না।’

তিনি রেলমন্ত্রীকে উদ্দ্যেশ্য করে আরও বলেন, ‘আমি আপনাকে শিলিগুড়ি টাউন স্টেশনকে হেরিটেজ স্টেশন হিসাবে ঘোষণা করার এবং মহান বিপ্লবী নেতা যতীন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায় বা বাঘা যতীনের নামে স্টেশনের নামকরণ করার জন্য আবেদন জানাচ্ছি। স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় বাঘা যতীন যে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছিলেন তা আমাদের কারোরই অজানা নয়। প্রকৃতপক্ষে এই স্টেশনেই ১৮০৮ সালের এপ্রিল মাসে, ক্যাপ্টেন মারফি এবং লেফটেন্যান্ট সোমারভিলের নেতৃত্বে ব্রিটিশ সামরিক বাহিনীর একদল অফিসারের সঙ্গে যুদ্ধ করেন বাঘা যতীন। এই ঐতিহাসিক রেলওয়ে স্টেশনের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করার জন্য, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের দিকগুলিকে চিত্রিত করে এখানে একটি জাদুঘর স্থাপন করা উচিত। উপরন্তু, পুরো স্টেশনের রক্ষণাবেক্ষণ প্রয়োজন।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগেও শিলিগুড়ি স্টেশনকে নিয়ে বহু জলঘোলা হয়েছে। স্টেশনটিকে সম্পূর্ণ মহিলা চালিত বলেও ঘোষণা করা হয়েছে বেশ কিছু বছর আগেই। বর্তমানে স্টেশনটি সম্পুর্ণ ভাবে মহিলা চালিত না হলেও এখানকার অধিকাংশ কর্মীই মহিলা। এরপর এবার স্টেশনটিকে হেরিটেজ তকমা দিয়ে তার নাম পরিবর্তনের দাবি তুললেন বিজেপি বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ।