টাইমলাইনরাজনীতি

বদল আর বদলা নিয়ে তৃণমূলকে আরো একবার কড়া ইঙ্গিত দিলেন দিলীপ ঘোষ

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ লকডাউন হালকা হওয়ার সাথে সাথে আরও একবার বাংলাজুড়ে তৃণমূল বনাম বিজেপি সংঘর্ষ জোরদার হতে শুরু করেছে। রাজ্য বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে শুক্রবার দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) বলেন আগামী বিধানসভা নির্বাচনে এ রাজ্যে বদল ঘটার সঙ্গে সঙ্গে তৃণমূলের অত্যাচারের প্রতিশোধ কড়ায় গন্ডায় বুঝে নেওয়া হবে l এদিন তিনি পুলিশ প্রশাসনেরও তীব্র সমালোচনা করেন l

রাজ্যে বদলার রাজনীতি চলছেই। রাজনৈতিক হিংসার খবর প্রতিদিনের। সেই চলতে থাকা উত্তাপ আরও বাড়ানোরই যেন রসদ জোগালেন দিলীপ ঘোষ। ফেসবুকে নিজের পাতায় রাজ্য বিজেপি সভাপতির পোস্ট– ‘বদলাও হবে, বদলও হবে’।

 

এমন কথা তিনি আগেও বলেছেন। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটা দেখা যায়নি। আর রাজ্য রাজনীতি ‘বদল’ ও ‘বদলা’ দুই শব্দের সঙ্গে আগে থাকতে পরিচিত থাকলেও এ যেন নতুন আঙ্গিক। পশ্চিমবঙ্গের মানচিত্র আর নিজের ছবির সঙ্গে এই স্লোগান দিয়ে কী বোঝাতে চাইছেন মেদিনীপুরের সাংসদ? চিন-ভারত সংঘাত নিয়ে গোটা দেশ যখন বদলা চাইছে তখন কোন ‘বদলা’র কথা বললেন দিলীপ ঘোষ?

তৃণমূল কংগ্রেসের নাম কোথাও না থাকলেও এই পোস্ট যে শাসকদলকে উদ্দেশ্য করেই দেওয়া তা একেবারেই স্পষ্ট। স্বীকারও করলেন দিলীপ ঘোষ। বললেন, “প্রতিদিন রাজ্যের কোথাও না কোথাও আমাদের কর্মীদের উপরে হামলা চলছে। মিথ্যা মামলা দেওয়া তো আছেই সেই সঙ্গে প্রাণ নেওয়া হচ্ছে। আমি ক্লান্ত হয়ে গেছে মৃতদেহে মালা দিতে দিতে। এক এক সময়ে কষ্ট হয়। এই রাজ্যের মানুষের পাশে দাঁড়াতে হলে বদলাও নিতে হবে। যে যেই ভাষা বোঝে তাকে সেই ভাষাতেই জবাব দিতে হয়।”

বরাবরই এই রকম চাঁচাছোলা ভাষায় কথা বলতে ভালবাসেন দিলীপ ঘোষ। সেই ভাষাতেই বললেন, “দলের সভাপতি হিসেবে আমার প্রধান দায়িত্ব দলের একেবারে তৃণমূল স্তরের কর্মীদের পাশে দাঁড়ানো। ভাল ভাল কথা বলা নয়। এই রাজ্যে অনেক বদল চাই। বদলে দিতে হবে এখনকার রাজনীতির পদ্ধতিকে। আর তার জন্য সেই পদ্ধতিই নিতে হবে যেটা কাজ করবে।” এখানেই থামেননি দিলীপ।

২০১১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের স্লোগান ছিল ‘পরিবর্তন চাই।’ আর ভোটের ফল বেরনোর পরে বিপুল জয়ের আনন্দে ভাসতে থাকা কর্মীদের উদ্দেশে কালীঘাটের বাড়িতে দাঁড়িয়ে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘বদলা নয়, বদল চাই।’ সেই প্রসঙ্গ মনে করাতে দিলীপ ঘোষের বক্তব্য, “মুখে ওসব বললেও কাজের ক্ষেত্রে কী করেছে তৃণমূল? দিনের পর দিন অত্যাচারের রাজনীতি চালিয়ে যাচ্ছে। আমার মুখ আর কাজ আলাদা নয়। তাই সত্যটা আগে আগে বলে দিলাম।”

মাস নয়েক পরেই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। ভার্চুয়াল জনসভার মধ্য দিয়ে সম্প্রতি সেই নির্বাচনের দামামা বাজিয়ে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তবে কি এটাই বিজেপির বিধানসভা নির্বাচনের স্লোগান হতে চলেছে? দলের রাজ্য সভাপতি এই প্রশ্নের জবাবে বলেন, “সেই সব পরে ঠিক হবে। কিন্তু আমার স্লোগান এটাই থাকবে।” এদিন তিনি বলেন, আমরা ক্ষমতায় এলে ছাড় পাবেন না তৃণমূলের দলদাস হয়ে কাজ করা প্রশাসনিক কর্তারাও। আইনের মধ্য দিয়েই তাঁদের বিরুদ্ধে বদলা নেওয়া হবে।

Back to top button