টাইমলাইনঅন্যান্য

NEET পরীক্ষায় সমান নম্বর আসার পরেও শোয়েব আফতাব র‍্যাঙ্ক ১ আর আকাঙ্খা র‍্যাঙ্ক ২! জানুন কারণ

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ NEET এর পরীক্ষার পরিণাম ঘোষণা হওয়ার পর ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি (NTA) এর কার্যপ্রণালী নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। আর এই বিতর্কের প্রধান কারণ হল, উড়িষ্যার এক ছাত্র এবং দিল্লীর এক ছাত্রী এই পরীক্ষায় একই নাম্বার পেয়েছে। কিন্তু উড়িষ্যার ছাত্রকে গোটা ভারতে প্রথম স্থান দেওয়ার হয়েছে, আর দিল্লীর ছাত্রী দ্বিতীয় স্থান পেয়েছে। NEET গতকাল শুক্রবার পরিণাম ঘোষণা করেছে, যেখানে উড়িষ্যার শোয়েব আফতাব গোটা ভারতে এক নম্বর স্থান দখল করেছে, আর আকাঙ্খা সিং দ্বিতীয় হয়েছে।

দুজনেই NEET পরীক্ষায় ৭২০ নম্বর পেয়েছে। কিন্তু এরপর শোয়েব গোটা ভারতে ১ আর আকাঙ্খা গোটা ভারতে দ্বিতীয় হয়েছে। এরপরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এটা নিয়ে তর্কবিতর্ক চলছে যে, কেন এরকম হল? দুজনই অসংরক্ষিত শ্রেণীর আরও দুজনেই সব বিষয়ে সমান নম্বর হাসিল করেছে। আর এই কারণে এটা এখন সবার চর্চার বিষয়।

উল্লেখ্য, এখানে NTA এর টাই ব্রেকিং পলিসি লাগু হয়, যেখানে সমান নম্বর আসার পর র‍্যাঙ্ক দেওয়ার জন্য কিছু নিয়ম নির্ধারিত আছে। এতে কার্যকারিতা এবং মৌলিক যোগ্যতার ভিত্তিতে র‍্যাঙ্ক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। NTA এর এক আধিকারিক জানান, এই পলিসি অনুযায়ী, যদি দুজন পরীক্ষার্থীর সমান নম্বর হয় তাহলে বায়োলজি আর কেমিস্ট্রি বিষয়ে তাঁদের নম্বর হিসেবে র‍্যাঙ্ক নির্ধারিত হয়।

যদি এই নিয়মেও কাজ না হয়, তাহলে কে কত প্রশ্নের উত্তর ভুল দিয়েছে সেটার ভিত্তিতে রাঙ্ক নির্ধারিত করা হয়। যেহেতু শোয়েব আর আকাঙ্খার নম্বর সমান, তাঁরা একটিও প্রশ্নের উত্তর ভুল দেয়নি, অথবা কোনও বিশেষ বিষয়ে এদের নম্বর কম বেশি নেই, সেহেতু সংখ্যায় পার্থক্য হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। NTA এর নিয়ম অনুযায়ী, শেষে বয়স হিসেবে রাঙ্ক নির্ধারণ করা হয়।

যার বয়স বেশি হবে, তাঁর র‍্যাঙ্ক উপরে যাবে। ১৮ বছর বয়সী শোয়েব আকাঙ্খার থেকে বড়, এই কারণে তাকে প্রথম স্থান দেওয়া হয়েছে। জানিয়ে দিই, NEET এর পরীক্ষায় ১৫.৯৭ লক্ষ পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছে। এদের মধ্যে ৭ লক্ষ ৭১ হাজার ৫০০ জন পাশ করেছে। পরীক্ষা দেওয়ার ১৩.৬ লক্ষ পড়ুয়াদের মধ্যে ৮.৮ লক্ষ কন্যা পড়ুয়া। ইংরেজি সমেত ১১ টি ভারতীয় ভাষায় NEET এর পরীক্ষা হয়েছে।

Back to top button