‘রাঘব বোয়াল’দের ছোঁয়া হল না কেন? নিয়োগ দুর্নীতিতে CBI-কে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের, কার দিকে ইঙ্গিত?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ নিয়োগ দুর্নীতি (Recruitment Scam) মামলায় মানিক পত্নী শতরূপা ভট্টাচার্য, নাইসার ভাইস প্রেসিডেন্ট নীলাদ্রি দাসের (Niladri Das) শুক্রবার ছাড়া পেলেন চাকরি বিক্রির অন্যতম দালাল প্রসন্ন রায় (Prasanna roy)। এদিন সুপ্রিম কোর্ট প্রসন্নর জামিনের আবেদনে সায় দিয়েছে। তবে এদিনই এই মামলার শুনানিতে সর্বোচ্চ আদালতের প্রশ্নের মুখে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই (CBI)।

সিবিআইকে উদ্দেশ্য করে সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্ন, “কেন এখনও ‘রাঘব বোয়াল’দের ছুঁয়ে দেখা হল না? যাদের জন্য টাকা নিয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধে এখনও কোনও পদক্ষেপ করা হলনা কেন?” এর উত্তরে সিবিআই সুপ্রিম কোর্টে জানায়, ” ইতিমধ্যেই বেশ কয়েক জন রাজ্য সরকারি কর্মচারীকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে তাদের বিরুদ্ধে এখনও তদন্তের অনুমতি দেয়নি রাজ্য।”

   

প্রসঙ্গত, গত বছর থেকে নিয়োগ দুর্নীতি (Recruitment Scam) ইস্যুতে তোলপাড় গোটা রাজ্য। পেঁয়াজের খোসা ছাড়ানোর মতো একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য রোজ সামনে আনছেন তদন্তকারীরা। এই আবহেই দুর্নীতি মামলায় ৩ নম্বর জামিন। জামিন পেলেন চাকরি বিক্রির ‘মিডিলম্যান’ প্রসন্ন রায়।

আরও পড়ুন: বড় খবর! নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সুপ্রিম কোর্টে জামিন পেয়ে গেল চাকরি বিক্রির ‘দালাল’, শোরগোল

sc5

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালের অগাস্ট মাসে SSC দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন প্রসন্ন রায়। পরে তাকে প্রাথমিক নিয়োগ দুর্নীতিতেও হেফাজতে নেয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। এদিন প্রসন্ন রায়ের হয়ে সর্বোচ্চ আদালতে সওয়াল করেন তার আইনজীবী মুকুল রোহতগি।

উল্লেখ্য, নিয়োগ দুর্নীতিতে ধৃত প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দূর সম্পর্কের আত্মীয় এই প্রসন্ন। চাকরি দুর্নীতিতে মিডিলম্যান হিসেবে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল বলে দাবি করে সিবিআই। উত্তর ২৪ পরগনা ও আশেপাশের এলাকার চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা তুলে তা তিনি পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছে পাঠাতেন বলেও অভিযোগ ওঠে। পার্থ এখনও গারদবন্দি থাকলেও এদিন নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় আদালতে জামিন পেলেন প্রসন্ন।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর