টাইমলাইনখেলাক্রিকেট

রোহিতের অধিনায়কোচিত ইনিংস এবং অক্ষরের দুরন্ত বোলিংয়ে ভর করে সিরিজে সমতা ফেরালো ভারত

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্ক: আজ দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে নাগপুরের জামথা স্টেডিয়ামে নেমেছে ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া। বৃষ্টির জন্য ম্যাচ শুরু হতে দেরি হয় এবং ম্যাচের ওভার সংখ্যা কমে দাঁড়ায় ৮-এ। টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেন রোহিত শর্মা। দলে ফিরেছিলেন বুমরা এবং পন্থ। বাদ পড়েছিলেন উমেশ যাদব এবং ভুবনেশ্বর কুমার। প্রথম ইনিংসে ব্যাট করে ম্যাথু ওয়েডের দুর্দান্ত ৪৩ রানের ইনিংসে ভর করে অস্ট্রেলিয়া ৮ ওভারে ৯০ রান তুলেছিল।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে প্রথম থেকে অজি বোলারদের ওপর আক্রমণ করা শুরু করেন ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা। অপরদিকে তার সঙ্গেই লোকেশ রাহুল এবং বিরাট কোহলি ভালো স্টার্ট করেও অজি লেগস্পিনার অ্যাডাম জাম্পার বলে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন।

পরপর ২ বলে বিরাট কোহলি এবং সূর্যকুমার যাদবকে ড্রেসিংরুমে ফিরিয়ে ভারতীয় দলকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন জাম্পা। হার্দিক পান্ডিয়াও ব্যাট করতে নেমে ব্যাটে বলে ঠিকঠাক টাইমিং করতে পারছিলেন না। শেষপর্যন্ত কামিন্সের স্লোয়ারে ঠকে গিয়ে আউট হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু উল্টো দিক থেকে একের পর এক সঙ্গীকে হারিয়ে ফেলেও নিজের লক্ষ্যে অবিচল ছিলেন রোহিত শর্মা। শুধুমাত্র পাওয়ার হিটিং নয়, প্রয়োজনে বুদ্ধিদীপ্ত শট খেলে ভারতের ইনিংসকে টানতে থাকেন তিনি।

ভারতের আজ শেষ অর্থাৎ অষ্টম ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৯ রান। দিনেশ কার্তিককে নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই সমালোচনা হচ্ছিল যে তিনি আর নিজের পরিচিত ভঙ্গিতে ম্যাচ ফিনিশ করতে পারছেন না। কিন্তু আজ শেষ ওভারের প্রথম দুই বলেই প্রথমে ছক্কা এবং তারপর একটি চার মেরে ম্যাচ শেষ করে দেন তিনি ৪ বল বাকি থাকতেই। ২০ বলে ৪টি চার ও ৪টি ছক্কা সহ ৪৬ রানে অপরাজিত থাকেন রোহিত।

তবে ভারতের এই জয়ে সবচেয়ে বড় অবদানের কথা যদি বলা হয় তাহলে অক্ষর প্যাটেলের নাম করতেই হবে। আজ ওভার সংখ্যা কমে যাওয়ায় কোন বোলারেরই দুই ওভারের বেশি বোলিং করার অনুমতি ছিল না। নিজের দুই ওভারে মাত্র ১৩ রান দিয়ে দুটি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নেন অক্ষর। এই ম্যাচে প্রত্যাবর্তনকারী যশপ্রীত বুমরাও একটি উইকেট পেয়েছেন। যেভাবে সেট ব্যাটার অ্যারন ফিঞ্চের স্টাম্প নিজের নিখুঁত ইয়র্কারে ছিটকে দিয়েছিলেন তিনি, তা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবি রাখে। কিন্তু নিজের ২ ওভারে ২৩ রান দিয়েছিলেন বুমরা। বলতে গেলে অক্ষরের বোলিংই অজিদের ১০০ রানের গণ্ডি পার করা থেকে আটকে ছিল।

 

Related Articles