ডায়েরির শেষ পাতায় মায়ের জন‍্য রাখা বিশেষ বার্তা, তারপরেই চরম সিদ্ধান্ত নেন সরস্বতী

বাংলাহান্ট ডেস্ক: টেলিপাড়ায় একের পর এক মডেল (Model) অভিনেত্রীর অস্বাভাবিক মৃত‍্যু। রবিবার তালিকাটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে চার জনে। এদিন কসবার (Kasba) একটি ফ্ল‍্যাট থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় সরস্বতী দাসের (Saraswati Das) দেহ। পুলিসের প্রাথমিক অনুমান আত্মহত‍্যা করেছেন সরস্বতী।

   

কসবার একটি আবাসনে নিজের মা, দিদা ও মাসির সঙ্গে থাকতেন সরস্বতী। তাঁর মা এবং মাসি আয়ার কাজ করেন। ঘটনার দিন বাড়ি ছিলেন না তাঁরা। বাড়িতে দিদার সঙ্গে ছিলেন সরস্বতী। রাতে নাতনিকে নিজের পাশেই নিয়ে শুয়েছিলেন তাঁর দিদা।


প্রতিদিন রাতেই নাকি কারোর সঙ্গে ফোনে কথা বলতেন সরস্বতী। রবিবারও তার অন‍্যথা হয়নি। পুলিসকে সরস্বতীর দিদা জানিয়েছেন, বেশ উত্তেজিত হয়েই কথা বলছিলেন ওই তরুণী। তবে অন‍্যান‍্য দিনও এমন হয় বলে বিশেষ পাত্তা দেননি তাঁর দিদা। এরপরে যে কী হতে পারে তা ঘুণাক্ষরেও টের পাননি তিনি।

মধ‍্যরাতে ঘুম ভাঙলে নাতনিকে পাশে না পেয়ে অন‍্য ঘরে গিয়ে তিনি দেখেন বীভৎস কাণ্ড। গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছেন সরস্বতী। ফাঁস খুলে তাঁকে নীচে নামানো গেলেও বাঁচানো যায়নি তরুণীকে। কসবা থানার পুলিস ঘটনার তদন্তে নেমেছে। অস্বাভাবিক মৃত‍্যুর অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে সরস্বতীর দেহ।

পুলিস একটি ডায়েরি উদ্ধার করেছে যার শেষ পাতায় মায়ের জন‍্য শেষ বার্তা রেখে গিয়েছেন সরস্বতী। মেহেন্দির ডিজাইন থাকা ডায়েরির শেষ পাতায় তিনি লিখেছেন, তাঁর মা এই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মা। সর্বদা তাঁকে অনুপ্রেরণা যোগানোর জন‍্য ধন‍্যবাদও জানিয়েছেন সরস্বতী।

বাড়ি থেকে কোনো অভিযোগ দায়ের না হলেও সরস্বতীর মাসির দাবি, সম্ভবত কোনো ছেলের সঙ্গে সম্পর্কে ছিলেন তরুণী। বা কেউ তাঁকে বিরক্ত করছিল। বছর ১৮ র এক তরুণীর মৃত‍্যুর নেপথ‍্যে কী কারণ রয়েছে তা জানার জন‍্যই তদন্ত চালাচ্ছে পুলিস।