টাইমলাইনবিনোদন

দেশে বেলাগাম করোনা, বিনামূল‍্যে অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের ব‍্যবস্থা করলেন সুনীল শেট্টি

বাংলাহান্ট ডেস্ক: গোটা দেশের পাশাপাশি স্বপ্ন নগরী মুম্বইতে ক্রমশ ভয়াবহ রূপ ধারন করছে করোনা (corona)। দেশে প্রতিদিন প্রায় তিন লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন। এমন অবস্থায় করোনা বিপর্যস্ত দেশবাসীর পাশে দাঁড়ালেন অভিনেতা সুনীল শেট্টি (suniel shetty)। এই কঠিন পরিস্থিতিতে বিনামূল‍্যে অক্সিজেন কনসেনট্রেটরের ব‍্যবস্থা করলেন তিনি।

কেভিএন ফাউন্ডেশনের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন সুনীল। এই সংস্থার এক নয়া প্রকল্প ‘Feed My City to provide oxygen concentrators’ এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন তিনি। এই বিষয়ে একটি টুইটে অভিনেতা লেখেন, ‘আমার কঠিন পরীক্ষার মধ‍্যে দিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু আশার আলো যে একে অপরকে সাহায‍্য করার  জন‍্য মানুষ হাতে হাত মিলিয়েছে। আমি এই উদ‍্যোগে শামিল হতে পেরে খুবই কৃতজ্ঞ। এটি কেভিএন ফাউন্ডেশনর একটি উদ‍্যোগ বিনামূল‍্যে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর দেওয়ার জন‍্য।’


মুম্বই ও বেঙ্গালুরুতেই আপাতত এই বিনামূল‍্যে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর দেওয়ার প্রকল্প চালু হয়েছে। নিজের অনুরাগীদেরও সাহায‍্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার অনুরোধ করেছেন সুনীল। যেকোনো প্রয়োজনে তিনি সাহায‍্য করতে প্রস্তুত বলেও জানিয়েছেন অভিনেতা।

তিনি লিখেছেন, ‘কোনো রকম সাহায‍্যের প্রয়োজন হলে বা অন‍্য কারোর সাহায‍্য দরকার তা জানা থাকলে সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করুন। কেউ সাহায‍্য করতে চাইলে বা আমাদের প্রকল্পে যোগ দিতে চাইলেও আমাকে জানাতে পারেন।’

দেশের এই ভয়াবহ সময়ে সাহায‍্যে এগিয়ে আসতে দেখা গিয়েছে বেশ কিছু তারকাকে। অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব‍্যবস্থা করেছেন সুস্মিতা সেন। করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার জন‍্য ১ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছেন অক্ষয় কুমার। প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা বর্তমান রাজনীতিবিদ গৌতম গম্ভীরের সমাজসেবী সংস্থাকে ১ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছেন অভিনেতা।

এই খবর গৌতম নিজেই টুইটে জানিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, অক্ষয়ের এই অনুদান করোনা মোকাবিলায় খুবই সাহায‍্য করবে। পর্যাপ্ত খাবার, অক্সিজেন, ওষুধ এই টাকায় কেনা যাবে বলে জানিয়েছেন গৌতম। এছাড়াও ১০০ টি অক্সিজেন কনসেনট্রেটর দান করেছেন অক্ষয় টুইঙ্কল।

বাদ নেই সলমন খানও। শিবসেনার যুব শাখার সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন তিনি। মোট ৫ হাজার করোনা যোদ্ধার খাবার ও পানীয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন অভিনেতা। এই যোদ্ধাদের মধ‍্যে রয়েছেন চিকিৎসক, নার্স, পুরসভার কর্মীরা।

রবিবার থেকে ভাইজানের এই উদ‍্যোগ চালু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সলমনের সংস্থা ভাইজানস কিচেন থেকে আসছে খাবারের প‍্যাকেট ও পানীয় জল। সবার হাতে হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে সেই খাবার ও জল। সলমন নিজে দাঁড়িয়ে থেকে পুরো বিষয়টা পর্যবেক্ষণ করছেন।

শুধু ভাইজানই নন, তাঁর মা সলমা খান বাংলোর নিরপত্তারক্ষীদের জন‍্য নিজে হাতে খাবার বানিয়েছেন বলে খবর। জানা গিয়েছে যতদিন এই লকডাউন চলবে ততদিন পর্যন্ত সলমনের ভাইজানস কিচেন ও শিবসেনার যুব শাখা মিলিত ভাবে এই কাজ করে যাবে। বাইকুল্লা থেকে জুহু এবং পূর্ব বান্দ্রা থেকে বিকেসি পর্যন্ত পৌঁছানো হচ্ছে খাবার ও পানীয়।

Related Articles