আমেরিকান সংস্থাকে অহঙ্কারের জবাব দিয়ে এবার এই কোম্পানিকে উচিত শিক্ষা দিল TATA! তৈরি হল নয়া রেকর্ড

বাংলা হান্ট ডেস্ক: ২০০৮ সাল ছিল ভারতীয় অটোমোবাইল সেক্টরের জন্য একটি ঐতিহাসিক বছর। কারণ, ওই বছরই রতন টাটা (Ratan Tata) তাঁর সংস্থা টাটা মোটরসের (Tata Motors) মাধ্যমে আমেরিকান গাড়ি প্রস্ততকারী সংস্থা ফোর্ডের (Ford) কাছ থেকে অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছিলেন। মূলত, ২০০৮ সালে ফোর্ডের মালিক বিল ফোর্ড রতন টাটাকে উপহাস করেছিলেন। তারপরেই TATA ওই কোম্পানির দু’টি জনপ্রিয় গাড়ির ব্র্যান্ড কিনে নেয়। আসলে ফোর্ড থেকে জাগুয়ার এবং ল্যান্ড রোভার নামে দু’টি বিলাসবহুল গাড়ির ব্র্যান্ড কিনে নেন রতন টাটা। আর এইভাবেই আমেরিকান কোম্পানির অপমানের প্রতিশোধ নেয় টাটা গ্রূপ।

এমতাবস্থায়, এবার দক্ষিণ কোরিয়ার একটি গাড়ি কোম্পানিকে উচিৎ শিক্ষা দিল TATA। মূলত, TATA একটি ভারতীয় কোম্পানি হলেও সমগ্ৰ বিশ্বজুড়ে এই সংস্থার ইতিবাচক প্রভাব রয়েছে। এমন একাধিক ঘটনা ঘটেছে যখন টাটা বিভিন্ন বিদেশি গাড়ি কোম্পানিকে পরাজিত করেছে। দক্ষিণ কোরিয়ার অটো কোম্পানি কিয়া মোটরস (KIA Motors) টাটাকে হারানোর লক্ষ্য নিয়ে ভারতের বাজারে প্রবেশ করেছিল। কিন্তু তা সফল হতে দেয়নি TATA। এমনকি, শুধু ভারতের বাজারেই নয়, বিশ্ব বাজারেও দক্ষিণ কোরিয়ার কোম্পানি কিয়াকে হারিয়েছে TATA। ২০২৩-এর জুলাই মাসে, কিয়াকে হারিয়ে টাটা মোটরস বিশ্বের ১৬ তম মোস্ট ভ্যালুড অটোমেকার কোম্পানি হয়ে উঠেছে।

   

ভারতেও পেছনে ফেলেছে: যে কিয়া ভারতে TATA-র জায়গা নেওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এসেছিল, সেটি বিশ্ব বাজারে টাটার কাছেই পরাজিত হয়েছে। বিশ্বব্যাপী যানবাহন প্রস্তুতকারকদের পরিসংখ্যানে টাটা মোটরস ২৭.৩৭ বিলিয়ন ডলারের মার্কেট ভ্যালুয়েশনের সাথে ১৬ তম স্থানে রয়েছে। যেখানে Kia Motors-এর পরিসংখ্যান হল ২৭.০৩ বিলিয়ন ডলার।

ভারতের সবচেয়ে বেশি বিক্রি হওয়া গাড়ি: উল্লেখ্য যে, মারুতি এবং হুন্ডাইয়ের পরে ভারতে গাড়ি বিক্রির সংখ্যায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে TATA৷ টাটা মোটরস ২০২৩ সালের জুন মাসে ৪৭,২৩৫ টি গাড়ি বিক্রি করেছে। যা গত বছরের তুলনায় ৪.৫১ শতাংশ বেশি। অপরদিকে, কিয়া ১৯,৩৯১ টি গাড়ি বিক্রি করেছে। এদিকে, বৈদ্যুতিক গাড়ির ক্ষেত্রেও টাটার আধিপত্য বজায় রয়েছে।

এই সেকশনে, ১০০ জনের মধ্যে ৭০ জন TATA-র গাড়ি কিনছেন। ফেডারেশন অফ অটোমোবাইল ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন (FADA) দ্বারা প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, ২০২৩-এর জুন মাসে বৈদ্যুতিক গাড়ি বিক্রির ক্ষেত্রে প্রথম স্থানে রয়েছে টাটা মোটরস। যার Nexon EV Prime, Nexon EV Max, Tiago EV এবং Tigor EV-র মোট ৫,৩৪৬ টি ইউনিট বিক্রি হয়েছে।

কেন সবাই TATA-কে ভরসা করেন:
১. TATA হল আমাদের দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী সংস্থা। যার কারণে এই কোম্পানির সঙ্গে দেশের মানুষের বিশেষ সংযোগ রয়েছে।
২. এই কোম্পানির লবণ থেকে শুরু করে বিমান পর্যন্ত বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবসা প্রসারিত রয়েছে। বছরের পর বছর ধরে এই কোম্পানি ব্যবসা করছে। যা কোম্পানির প্রতি মানুষের আস্থা বৃদ্ধি করেছে।
৩. শক্তিশালী নির্মাণ, নিরাপত্তা এবং প্রযুক্তির ভিত্তিতে, টাটার গাড়িগুলি কর্মক্ষমতার দিক থেকে দেশে এবং বিদেশে সবাইকে আকৃষ্ট করছে।

Tata made a new record

৪. মাইক্রো, কমপ্যাক্ট এসইউভি এবং ফুল সাইজ এসইউভিতে টাটার গাড়ির প্রাধান্য রয়েছে।
৫. দামের দিক থেকেও TATA বাকি গাড়ি কোম্পানিগুলিকে হার মানায়।
৬. গাড়ির রক্ষণাবেক্ষণের পরিপ্রেক্ষিতেও TATA অন্যান্য গাড়ি সংস্থাগুলিকে পরাজিত করেছে।
৭. দেশের প্রতিটি কোণায় টাটা মোটরসের সার্ভিস সেন্টার রয়েছে।
৮. টাটার গাড়ির যন্ত্রাংশ সহজেই পাওয়া যায়।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর