ভারতের থেকে বেশি পাকিস্তানে খাওয়া হয় এই ‘চিজ’! জানলে চমকে উঠবেন

বাংলা হান্ট ডেস্ক : এটি এমন একটি জিনিস যা দেশ বিদেশে সকলেরই প্রিয়। এটি একটি দুগ্ধজাত পণ্য। এটিকে আপনারা বার্গার ও পিজ্জা সহ অনেক খাদ্য পণ্যে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হতে দেখতে পাবেন। এটি পশ্চিমা দেশগুলিতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এই খাদ্য পণ্যটি ইউরোপের দেশ সুইজারল্যান্ড প্রথম স্থানে রয়েছে। এই খাদ্য পণ্যটির নাম হল চিজ (Chease)।

   

চিজ পশ্চিমা দেশগুলিতে ব্যাপক পরিমানে ব্যবহার হলেও এখন ভারত (India) সহ বাকি বিশ্বের দেশগুলিতেও এই খাদ্য পণ্যটির হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে ভারতে এর ব্যবহার অনেকটাই কম। যদি মাথাপিছু চিজের ব্যবহার দেখা হয়, তাহলে ভারত পাকিস্তানের (Pakistan) থেকেও পিছিয়ে। সুইজারল্যান্ডে এটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, সুইজারল্যান্ডে প্রত্যেক ব্যক্তি প্রতি বছর ২২.৪৮ কেজি চীজ খায়। এটিকে বিভিন্ন উপায়ে তৈরী করা হয়, তাই এর রং ও স্বাদ ভিন্ন হয়। এটি বার্গার, পিজ্জা, পাস্তা এবং অন্যান্য খাদ্যে ব্যবহার করা হয়। এছাড়া, ইউরোপীয় ইউনিয়ন চিজ খাওয়ার ক্ষেত্রে সুইজারল্যান্ডের পরে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে।

জেনেনিন বাইরের দেশগুলি কী পরিমানে চিজ খেতে ভালোবাসে

ইস্রায়েলে প্রত্যেক ব্যক্তি বছরে চিজ খায় প্রায় ১৮.৪৯ কেজি, একইভাবে আমেরিকায় প্রত্যেক ব্যক্তি বার্ষিক চিজ খায় ১৭.৯২ কেজি এবং কানাডায় প্রত্যেক ব্যক্তি ১৪.১০ কেজি চিজ খায়। এই তালিকায় অস্ট্রেলিয়া (১৩.০৪ কেজি), যুক্তরাজ্য (১২.২৩ কেজি), নিউজিল্যান্ড (১০.২২ কেজি), যুক্তরাজ্য (১২.২৩ কেজি) এবং চিলি রয়েছে সবথেকে শীর্ষে ১০-এ ৯.১৫ কেজি বার্ষিক খরচ।

আরও পড়ুন : সত্যজিৎ রায়ের বায়োপিকে আমির খান? সাদা-কালো ছবিতে উত্তাল নেটদুনিয়া

এছাড়াও রয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ আর্জেন্টিনা যেখানে প্রত্যেক ব্যক্তির চিজের বার্ষিক ব্যবহার ৮.৭২ কেজি। ইসলামিক দেশগুলিতে প্রত্যেক মানুষ বছরে ৬.৮৬ কেজি ্চিজ খায়। তবে এই দেশগুলির তুলনায় এগিয়ে রয়েছে ব্রাজিল। এ দেশে মাথাপিছু চিজের বার্ষিক খরচ প্রায় ৪.০৩ কেজি। যেখানে পাকিস্তানে চিজের বার্ষিক ব্যবহার ০.০১ কেজি সেখানে ভারত এটি ব্যবহারে ০.০ কেজি।