রাম মন্দির নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জের, ভাষণ দেওয়া বাম নেতাকে ধুয়ে দিল জনতা! ভাইরাল ভিডিও

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক : রাত পোহালেই শুরু হবে রাম মন্দির (Ram Mandir) উদ্বোধনের ঘনঘটা। গোটা রামনগরী এখন ধর্মীয় উৎসাহে ভরে উঠেছে। এইদিন উপস্থিত থাকবেন দেশের সমস্ত ভিভিআইপি-রা। উপস্থিত থাকবেন দেশের একাধিক শিল্পপতি, ধনকুবের থেকে শুরু করে খেলোয়াড়, অভিনেতা সকলেই। রীতিমত চাঁদের হাট বসবে অযোধ্যায় (Ayodhya)। গোটা ভারত এখন প্রস্তুত এই অনুষ্ঠান উদযাপনের জন্য।

যদিও ১৪০ কোটি মানুষের একটা অংশ আবার মোটেও খুশি নন এই উদযাপনে। বিরোধী দল থেকে শুরু করে একাধিক মানুষ ক্রমাগত বিরোধীতা করে চলেছেন। এই ধর্মীয় অনুষ্ঠানের বিরোধীতা করে সরব হয়েছেন প্রচুর মানুষ। বিশেষ করে বামপন্থী দলগুলি এর বিরোধিতা করে রাস্তায় নেমেছে। ক্রমাগত বিরোধীতা দেখানো হচ্ছে পলিটব্যুরোর নেতাদের তরফ থেকে।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে যে স্পেশাল স্ক্রিনিং-র বিরুদ্ধে সরব হয়েছে যাদবপুরের শিক্ষক সংগঠন জুটা। বিরোধীতা করেছে বাম সংগঠন এসএফআই। যদিও এইসব কোনোকিছুকেই মান্যতা দিতে রাজি নয় হিন্দুত্ববাদী সংগঠন তথা হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষজন। যেখানে সেখানে বাম সংগঠনগুলির নিন্দায় সরব হচ্ছে আম জনতা। সম্প্রতি এমনই এক ভাইরাল ভিডিওতে (Viral Video) দেখা যাচ্ছে, এক বাম নেতাকে রীতিমত ধুয়ে দিয়েছে সাধারণ মানুষ।

আরও পড়ুন : ED-র গ্যাঁড়াকলে রাজ্য সরকার! দুর্নীতি রুখতে বড় বদল গ্রুপ ডি-র নিয়োগে, বড় ঘোষণা নবান্নর

ভাইরাল এক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, এক বাম নেতা ভাষণ দিচ্ছেন। পেছনে লেখা রয়েছে RSP-র পোস্টার। যার গোটা বক্তব্য জুড়ে কেবল রাম মন্দিরের বিরোধিতা। আর তাতেই চটে লাল সাধারণ মানুষ। এক ব্যক্তি অন ক্যামেরা বলেন, ‘কেবল রাম মন্দিরের বিরোধীতা করছেন। ক্ষমতা থাকলে মসজিদ নিয়ে কিছু বলে দেখান। একটা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নিয়ে আপনাদের এত রাগ কিসের? যত সমস্যা কেবল আপনাদেরই। আপনারাই আসল ধর্মীয় বিভাজন ঘটাচ্ছেন।’ এরপরেই সুর চড়াতে শুরু করে আশেপাশের মানুষজন।

ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই শুরু হয়েছে শোরগোল। হাসির রোল উঠেছে নেটপাড়ায়। দিবাকর বলে এক ব্যক্তি ভিডিওটি শেয়ার করে ক্যাপশনে কটাক্ষ লিখেছেন, ‘অসাধারণ, আর এক হালাল খাওয়া ভামনানু ঝটকার স্বাদ পেলো। এ স্বাদ উত্তরোত্তর বাড়বে।’ পোস্টটি পাবলিক হওয়ার পরপরই ঝড়ের বেগে শেয়ার হয়ে চলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর