টাইমলাইনভারতরাজনীতি

কেন বাড়ছে পেট্রো পণ্যের দাম, অবশেষে দেশের ভেতরের লুকিয়ে থাকা কথা জানালেন নির্মলা সীতারামন

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ আকাশছোঁয়া হয়ে রয়েছে পেট্রোল ডিজেলের দাম। এই পরিস্থিতিতে বাইরে বেরিয়ে গাড়ি ভাড়া দিতে দিতেই নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে সাধারণ জনতার। তবে এর মধ্যে পেট্রোল ডিজেলের দাম কম না করতে পারার জন্য, প্রাক্তন কংগ্রেস সরকারকে দুষলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ (nirmala sitharaman)।আগের সরকারের ভুলের জন্য পেট্রোল ডিজেলের দাম কমাতে পারছে না এই সরকার, এমনটাও দাবি করলেন তিনি। তবে অর্থমন্ত্রীর এই দাবিকে নস্মাৎ করে দিল কংগ্রেস।

লাগাতার বেড়ে চলা পেট্রোপণ‍্যের দাম কমাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে বর্তমান সরকার। কোনভাবেই সম্ভব হচ্ছে না দাম কমানো। কিন্তু অন্য দিকে পেট্রোপণ‍্যের মূল‍্যবৃদ্ধির জেরে নাজেহাল হয়ে পড়ছে সাধারণ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে দাম কম করতে না পারার কারণ দেখিয়ে, পূর্বের কংগ্রেস সরকারকে দায়ী করলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ।

তিনি জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকার চাইলেই পেট্রোল ডিজেলের দাম কমাতে পারে। কিন্তু নিজের আমলে দেশের বিভিন্ন তেল সংস্থাকে তেলের বন্ড বিক্রি করেছিল মনমোহন সিং সরকার, আর এখন সেই বন্ডের সুদ মেটাতে হচ্ছে মোদী সরকারকে। যার কারণে তেলের দাম কমাতে পারছে না বর্তমান সরকার। যদি এই অতিরিক্ত অর্থ না মেটাতে হত, তাহলে অবশ্যই তেলের দাম কমাতে পারত বর্তমান সরকার।

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, তেল সংস্থাগুলোকে ১.৪ লক্ষ কোটি টাকার বন্ড বিক্রি করেছিল মনমোহন সরকার। আর যার চড়া সুদ মেটাতে হচ্ছে মোদী সরকারকে। আর এই সমস্যার কারণেই কোনভাবেই জ্বালানি তেলের দাম কমাতে পারছে না সরকার।

কিন্তু অর্থমন্ত্রীর এই দাবি মানতে নারাজ কংগ্রেস। এবিষয়ে কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরযেওয়ালা ট‍্যুইটে লেখেন, ‘১.৩ লক্ষের তেল বন্ডের কোন টাকা আর বাকি নেই। দয়া করে মিথ্যা না বলে, সাহসের সঙ্গে আমার যুক্তির পাল্টা বলে দেখান। বিগত ৭ বছর ধরে বিজেপি সরকার পেট্রোলের উপর ২৩.৮৭ এবং ডিজেলের উপর ২৮.৩৭ টাকা কর বৃদ্ধি করেছে। যার ফলে অতিরিক্ত ১৭.২৯ লক্ষ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছে মোদী সরকার’।

Related Articles

Back to top button