fbpx
টাইমলাইনরাজনীতি

চোরগুলো ছবিও চুরি করেছে-তৃণমূলকে কড়া ভাষায় আক্রমন করলেন মহম্মদ সেলিম

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ সিপিআইএম (CPIM) ও তৃণমূলের (TMC) রাজনৈতিক সংঘাত নতুন কিছু নয়। আবার তৃণমূলকে কড়া ভাবে আক্রমণ করলেন সিপিআইএমের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম (Mohammad Selim)। চোরগুলো ছবিও চুরি করেছে তৃণমূলকে কড়া ভাষায় আক্রমন করলেন মহম্মদ সেলিম।

শনিবার তৃণমূলকে আক্রমণ করে মহম্মদ সেলিম কড়া একটি টুইট করেন। সেখানে তিনি লেখেন বিজ্ঞানমঞ্চ-র অফিস ‘পরিবর্তন’ এর ২০১১ থেকে লুটেরাদের দখলে, তাদের‌ই নিরলস ত্রাণকার্যকে স্বীকৃতি না দিয়ে, বেমালুম ডেরেক ও ব্রায়েন ‘নাম কা ওয়াস্তে’ চালিয়ে দিলেন। ‘য্যায়সা গুরু ওয়সা চ্যালা’।

তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েনের (Derek ০ Brien) একটি ফেসবুক পোষ্ট দেখে রিতীমত সেলিমবাবু বিক্ষুব্ধ হন। সম্প্রতি, কিছুদিন আগে ঘটে যাওয়া বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় আমফানে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাংলা। সেখানেই সরকারি ত্রাণের কথা বলতে গিয়ে ৩১ মে নিজের ফেসবুক পোষ্টে তৃণমূল সাংসদ লেখেন – “এক সপ্তাহ আগে তোলা কিছু ছবি শেয়ার করছি। সুন্দরবন একটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের স্থান। রাজ্যের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে ৬২৫০ কোটি টাকা ত্রাণ এবং যার মধ্যে আছে আমফানে ধ্বংস হয়ে যাওয়া ১০ লক্ষ বাড়ির যাওয়া প্রতিটির পুনর্নির্মাণের জন্য ২০ হাজার টাকা।” এই পোস্টের সঙ্গে চারটি ছবিও পোস্ট করেন তৃণমূল সাংসদ। শনিবার ১৩ জুন বিকেল ৫টায় এই খবর লেখা পর্যন্ত সেই ছবি এবং পোস্ট ফেসবুকে আছে।

এই টুইট ঘিরে শুরু হয় বিতর্ক। রাজ্য সরকারের ত্রাণ দেবার ছবি বলে পোস্ট করা তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েনের চারটি ছবির মধ্যে দুটি আসলে পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের ত্রাণ বিলির ছবি। এই বিষয়ে এদিন প্রতিবাদ জানিয়ে একটি পোস্ট করেন বিজ্ঞান মঞ্চের কর্মী সৌরভ চক্রবর্তী।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ২৪ এপ্রিল সিপিআইএম পলিটব্যুরো সদস্য প্রকাশ কারাত ডেরেক ও ব্রায়েনের বিরুদ্ধে তাঁর বিকৃত ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার জন্য এফ আই আর দায়ের করেছিলেন। সেবার অন্য এক ছবিতে প্রকাশ কারাতের মুখ বসিয়ে তৃণমূলের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে পোষ্ট করা হয়েছিলো এবং এক সাংবাদিক সম্মেলনে ডেরেক ও ব্রায়েন সেই ছবি দেখিয়েছিলেন। পরে ওই ছবি তুলেও নেওয়া হয়।

 

Back to top button
Close