fbpx
টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

পাকা বাড়ি, গাড়ি থেকেও আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় বিজেপি নেতার নাম, ক্ষোভ প্রকাশ তৃণমূলের

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ এক কথায় বলতে গেলে স্বচ্ছল অবস্থা, পাকা বাড়ি, গাড়ি, বাইক, এসি সবই রয়েছে। তবুও আমফানের (Amphan) ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় সেই পরিবারের নাম। নজর এড়ায়নি বাড়িতে থাকা বিজেপির পতাকাও। ঘটনাটি সামনে আসতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন স্থানীয়রা। ক্ষুব্ধ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বও। ঘটনাটি ঘটেছে ভাঙড়ের কাশীপুরের।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই পরিবারের গৃহকর্তা প্রবীর ঘোষ। পেশায় ভাঙড় ২ নম্বর ব্লকের শ্রমদপ্তরের অস্থায়ী ডাটা এন্ট্রি অপারেটর। মোটের উপর আর্থিকভাবে স্বচ্ছল। এলাকায় বিজেপি নেতা হিসেবে বেশ পরিচিতও তিনি। তাঁর বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠল অসাধু উপায়ে আমফানের ক্ষতিপূরণ নেওয়ার চেষ্টার।

অভিযোগ, আমফানের ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় নাম রয়েছে এই প্রবীর ঘোষে স্ত্রী ও মায়ের। স্থানীয়দের কথায়, শুধু উনি একা নন, এলাকায় এমন বহু মানুষ রয়েছেন যারা প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত নন, কিন্তু ঠিকানা ভাঁড়িয়ে ক্ষতিপূরণের আবেদন করেছেন।

এপ্রসঙ্গে ভাঙড় ২ নম্বরের বিডিও কৌশিক মাইতি বলেন, “প্রবীরবাবুর বিষয়টি জানিয়ে শানপুকুরের ছেলেগোয়ালিয়র ১১ নম্বর সংসদের তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য তুলসি দাস অভিযোগ করেছেন। খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” অভিযোগকারীর কথায়, “বিজেপি নেতারা পরিচয়-ঠিকানা ভাঁড়িয়ে ত্রাণের আবেদন করছে আর বদনাম হচ্ছে শাসকদলের! এটা কোনওভাবেই মানা হবে না।”

যদিও নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেই দাবি ওই বিজেপি নেতার। তাঁর কথায়, ঘূর্ণিঝড়ে বাড়ির টিনের চাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই স্ত্রীর নামে ক্ষতিপূরণের আবেদন করেছেন। অন্যদিকে মা তাঁর সঙ্গে থাকেন না, তিনি যেখানে থাকেন সেই বাড়িরও ক্ষতি হয়েছে। সেই কারণেই মায়ের নামেও ক্ষতিপূরণের আবেদন করেছেন বলে জানান প্রবীরবাবু।

তবে তাঁর সাফ কথা, এখানে কোনও অন্যায় নেই, কারণ সরকারি নির্দেশিকায় বলা হয়নি যে পাকাবাড়ি থাকলে ক্ষতিপূরণ মিলবে না! বিজেপি নেতার এই মন্তব্যে তুঙ্গে বিতর্ক। প্রসঙ্গত, আমফানের ক্ষতিপূরণে দুর্নীতি হচ্ছে, এই অভিযোগ তুলে বারবার শাসকদলের কর্মীদের আক্রমণ করেছে বিরোধীরা। খোদ মুখ্যমন্ত্রীর কাছেও জানানো হয়েছে অভিযোগ। এরই মাঝে বিজেপি নেতার কীর্তি অস্বস্তি বাড়াচ্ছে গেরুয়া শিবিরের।

Back to top button
Close