টাইমলাইনভারত

বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য! প্রজ্ঞা ও নরেন্দ্র মোদীর হত্যার ষড়যন্ত্রকারী আবদুল রহমান জড়িত আতঙ্কবাদীদের সাথে

মধ্য প্রদেশের ভোপাল থেকে বিজেপি সাংসদ প্রজ্ঞা সিং ঠাকুরকে (Pragya Singh Thakur) যে হুমকিপূর্ণ চিঠি পাঠিয়েছিল তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তার পরিচয় ৩৫ বছর বয়সী চিকিৎসক সৈয়দ আবদুল রহমান খান হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে। মধ্য প্রদেশের সন্ত্রাসবিরোধী স্কোয়াড (ATS) মহারাষ্ট্রের নান্দেদ জেলা থেকে তাকে ধরেছিল। মিডিয়া রিপোর্টের খবর অনুযায়ী, এই ব্যক্তি ৩ মাস ধরে এটিএস-র রাডারে ছিলেন। তিনি কর্তৃপক্ষকে একটি চিঠি লিখেছিলেন যে, তাঁর মা এবং ভাই সন্ত্রাসীদের সাথে যোগাযোগে রয়েছে।

 

পুলিশ জানিয়েছে যে, আসামি আবদুল রহমান খান অক্টোবরে ভোপাল সাংসদ প্রজ্ঞা সিং ঠাকুরকে সন্দেহজনক খাম এবং হুমকি সংক্রান্ত চিঠি পাঠিয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। চিঠিটি ১৩ই জানুয়ারীর রাতে খোলা হয়েছিল এবং পুলিশকে এ সম্পর্কে জানানো হয়েছিল।

এই চিঠিটি সম্পর্কে প্রজ্ঞা ঠাকুর বলেছিলেন, “একটি ভারী খাম এসেছিল যার মধ্যে একটি পাউচ ছিল। আমি আমার পিএকে বলেছিলাম যে এটি একটি পাউচ,এটিকে তাড়াতাড়ি ফেলে দিন,তিনিও সেটিকে ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন । কিন্তু খামটির মধ্যে কিছু ফটো দেখা যাচ্ছিল এটি কিছু ফটো দেখিয়েছিল, যা থেকে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল যে পাউচটির ভিতরে একটি চিঠি ছিল। চিঠিটি উর্দুতে লেখা ছিল তবে এর সাথে আরও অনেকগুলি কাগজ সংযুক্ত ছিল। এটিতে আমার একটি ফটো ছিল যার উপর ক্রস চিহ্ন করা ছিলো।”

রিপোর্ট অনুসারে, এই চিঠিটি পড়ার পরে, সাধ্বী প্রজ্ঞা ভোপাল পুলিশে অভিযোগ করেছিলেন যে কেউ তাকে কিছু খাম এবং চিঠি পাঠিয়েছে যার মধ্যে কিছু বিষাক্ত রাসায়নিক রয়েছে। পাউডার সহ উর্দুতে লেখা চিঠিটিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল এবং প্রজ্ঞা ঠাকুরের ছবি ক্রসযুক্ত অবস্থায় পাওয়া গেছিল। সাধ্বির কর্মীরা চিঠিটিকে সন্দেহজনক বলে মনে করে এবং পুলিশকে অবহিত করে।

বিজেপি সাংসদ প্রজ্ঞা ঠাকুরের বাড়ি থেকে পুলিশ তিনটি খাম উদ্ধার করেছিল। কিছু খামের মধ্যে উর্দুতে লেখা চিঠি ছিল। নান্দেদ এর ইটওয়ারা থানার পরিদর্শক প্রদীপ কাকাদে বলেছিলেন যে তদন্ত চলাকালীন মধ্য প্রদেশের এটিএস খবর পায় যে ধনগাঁও এলাকার চিকিৎসক সৈয়দ আবদুল রহমান খান এই সন্দেহজনক খামটি প্রজ্ঞা ঠাকুরের কাছে প্রেরণ করেছেন।

Back to top button
Close