টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গ

হাওড়া, মুর্শিদাবাদের পর এবার নদিয়া! বেথুয়াডহরি স্টেশনে ঢুকে ভাঙচুর! ব্যাহত রেল পরিষেবা

পয়গম্বরকে নিয়ে নূপুর শর্মার করা বিতর্কিত মন্তব্যের রেশ যেন কাটতেই চাইছে না। গোটা ভারত ও বাংলায় মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ দেখিয়ে চলছে। তবে, শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের নাম করে সেই বিক্ষোভ হয়ে উঠছে হিংসাত্মক। ইতিমধ্যে বাংলায় আমরা সেই রূপ দেখতে পেরেছিল। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার হাওড়া, উলুবেড়িয়া, পার্ক সার্কাসে অশান্তির আগুন দেখেছে বাংলা।

খোদ মুখ্যমন্ত্রী কড়া নির্দেশ দিয়ে এই বিক্ষোভ থামাতে বলেছেন। সক্রিয় হয়েছে প্রশাসনও। কিন্তু কে শোনে কার কথা! হাওড়া, কলকাতার পর এবার নদিয়াতেও সেই বিক্ষোভের আঁচ দেখা গেল। তবে, এবারও শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ নিমিষেই হিংসাত্মক রূপ নিয়ে নেয়। আর বিক্ষোভে শামিল মানুষেরা মারমুখী ও হামলাকারী হয়ে ওঠে। এবার ঘটনার কেন্দ্রস্থল নদিয়ার বেথুয়াডহরি রেল স্টেশন।

আন্দোলনকারীরা রীতিমত তাণ্ডব চালায় সরকারি সম্পত্তিতে। স্টেশনে ঢুকে চলে ভাঙচুর। সকাল থেকেই বিক্ষোভ দেখা গেলেও, বিকেল বেলায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। তবে শুধু রেল স্টেশনেই না, রাস্তার পাশের ঘরবাড়ি ও দোকানেও ভাঙচুর চালায় নবীর অনুগামীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য রাজ্য পুলিশ, আরপিএফ ও জিআরপি যথাসাধ্য চেষ্টা চালাচ্ছে।

স্টেশন, ঘরবাড়ি বার দোকানেই হামলা করে ক্ষান্ত হয়ে থাকেনি প্রতিবাদীরা। তারা ট্রেনেও হামলা চালায়। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ হয়ে ওঠে যে, ওই লাইনে ট্রেন চলাচলই বন্ধ করে দেওয়া হয়। এছাড়াও ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কও অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অসফল হয়েছে।

কৃষ্ণনগর-লালগোলা লোকালে পাথর ছুঁড়ে প্রতিবাদ জানায় আন্দোলনকারীরা। এরপর ট্রেনে উঠেই চলে তাণ্ডব। বর্তমানে বেথুয়াডহরি স্টেশন চত্বর যেন রণক্ষেত্র হয়ে উঠেছে।

Related Articles

Back to top button