বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ছে একের পর এক ছবি, বাধ্য হয়ে ভগবানের চরণেই আশ্রয় নিলেন অক্ষয়

   

বাংলাহান্ট ডেস্ক : বলিউড (Bollywood) জগতে তিনি সুপারস্টার। তবে বিগত কয়েকদিন ধরে সময়টা মোটেই ভালো যাচ্ছে না অক্ষয় কুমারের (Akshay Kumar)। একের পর এক ছবিতে অভিনয় করলেও বক্স অফিসে চলছে না অক্ষয় ম্যাজিক। আর এসবের মাঝেই কেদারনাথ দর্শনে গিয়েছিলেন অভিনেতা। তাঁকে মন্দির প্রাঙ্গণে দেখেই রে রে করে কটাক্ষ করতে ধেয়ে এলেন নেটিজেনরা।

‘বেল বটম’ , ‘বচ্চন পান্ডে’ , ‘পৃথ্বীরাজ’ , ‘রামসেতু’ , ‘সেলফি’ কোন ছবিই বক্স অফিসে সেভাবে আনতে পারেনি সাফল্য। সমালোচকদের অভিযোগ, বর্তমানে অক্ষয় কুমার যে কয়েকটা ছবিতে অভিনয় করছেন সবেতেই তিনি গেরুয়া রাজনীতির জয়জয়কার শুরু করেছেন। আর সে কারণেই বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ছে তাঁর ছবি।

Akshay Kumar

আর এই পরিস্থিতিতেই উত্তরাখণ্ডের কেদারনাথ মন্দির দর্শনে গিয়েছিলেন বলিউডের খিলাড়ি। সেই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই কটাক্ষের বন্যায় বইয়ে দিলেন সমালোচকেরা। আসলে এই ঘটনা নেপথ্যে রয়েছে অক্ষয়ের এক পুরনো সাক্ষাৎকার। সেখানেই অভিনেতাকে বলতে শোনা গেছিল, ‘মন্দিরে যাওয়া মানেই টাকা ধ্বংস করা। একটা সময় আমি বৈষ্ণদেবীকে এক থেকে দু লাখ টাকা করে দিতাম। কিন্তু পরে বুঝতে পারি সেই টাকা ঈশ্বরকে না দিয়ে অসহায় মানুষকে দেওয়া উচিত’।

এখানেই শেষ নয়। বরাবরই অক্ষয় কুমার মন্দিরে দুত এবং তেল দেওয়ার বিরোধী। তাঁর মতে, ভগবানকে কোন কিছু দান করার থেকে অসহায় মানুষকে দান করা শ্রেয়। অভিনেতার পুরনো এই সাক্ষাৎকার সোশ্যাল মিডিয়া ভাগাভাগি করে নিয়েছেন এক সমালোচক। এরপরই তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘এত কিছু বলার পরেও কেন এখন মন্দিরে যাচ্ছ? মন্দিরে টাকা নষ্ট হয়’।

akshay kumar

এমনকি অনেকেই অভিনেতাকে সুবিধাবাদী বলে কটাক্ষ করেছেন। যদিও প্রিয় অভিনেতাকে কেদারনাথ দর্শন করতে দেখে খুশি হয়েছেন অগণিত ভক্ত। উল্লেখ্য, কাজের দিক থেকে বর্তমানে ‘বড়ে মিঞা ছোটে মিঞা’ ছবির শ্যুটিং নিয়ে খুব ব্যস্ত অভিনেতা। এই ছবিতে টাইগার শ্রফের সঙ্গে জুটি বেঁধে হাজির হতে চলেছেন অক্ষয়। খুব শীঘ্রই তাকে দেখা যাবে বক্স অফিসে। এই ছবি কতটা সাফল্য আনতে পারে এখন সেটাই দেখার।

Avatar
additiya

সম্পর্কিত খবর