কিছুই তো নেই, পুরো সমান! ইন্ডাস্ট্রিতে পা দেওয়া ইস্তক শরীরের গঠন নিয়ে কটুক্তি শুনতে হয় অনন‍্যাকে

বাংলাহান্ট ডেস্ক: এখন সোশ‍্যাল মিডিয়ার একটা বড় অঙ্গ হল ট্রোলিং (Trolling)। তারকারাই বেশি শিকার হন অনলাইন কাদা ছোঁড়াছুঁড়ির। বডি শেমিং থেকে শুরু করে চরিত্র নিয়ে কাটাছেঁড়া কোনো কিছু থেকেই রেহাই পাননা বিনোদন দুনিয়ার বাসিন্দারা। কিন্তু এইসব কুৎসিত ট্রোলের বিরুদ্ধে ধীরে ধীরে প্রতিবাদ বাড়ছে। মানসিক সচেতনতা নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। সম্প্রতি যেমনটা হয়েছে কফি উইথ করন শো (Koffee With Karan) তে।

   

সোশ‍্যাল মিডিয়া ট্রোল এবং ব‍্যক্তিগত জীবনে তার প্রভাব নিয়ে প্রতিটি পর্বেই তারকাদের সঙ্গে আলোচনা করছেন  করন জোহর। সাম্প্রতিক পর্বে অতিথি হয়ে এসেছিলেন বিজয় দেবেরাকোন্ডা এবং অনন‍্যা পাণ্ডে (Ananya Pandey)। স্টার কিডকে করন জিজ্ঞাসা করেন, তাঁর মনে ট্রোলের কোনো প্রভাব পড়ে কিনা।


উল্লেখ‍্য, অনন‍্যা হলেন চাঙ্কি পাণ্ডের কন‍্যা। নেপোটিজন ইস‍্যু ছাড়াও আরো নানান কারণে ঠট্টার পাত্রী হতে হয় তাঁকে। এমনকি তার মধ‍্যে রয়েছে বডি শেমিংও। অনন‍্যা বলেন, ট্রোল তাঁর মনে খুবই প্রভাব ফেলে। তিনি এমন ভান করতে পারবেন না যেন এসব নিন্দা, সমালোচনায় তাঁর কিছুই যায় আসে না। একজন ১৯ বছরের তরুণী হিসাবে তাঁকে প্রতিনিয়ত শুনতে হয় যে তাঁকে দেখতে খারাপ, স্তনযুগল ছোট বা শরীরের গঠন ভাল নয়। এমনকি তাঁর বাবা মা, বোনকে নিয়েও কটুক্তি করা হয়।

অনন‍্যা বলেন, তিনি অভিনয় ভালবাসেন। ছোট থেকে অভিনেত্রী হতেই চেয়েছেন। নিজের কাজটা ঠিক মতো করতে চান তিনি। মাঝে মাঝে তিনি এটাই বুঝতে পারেন না যে তিনি কী এমন করেছেন যার জন‍্য এমন নিন্দেমন্দ শুনতে হয়।
মূলত নিজের অভিনয় দক্ষতা এবং কথাবার্তার ধরণের জন‍্য ট্রোল হন অনন‍্যা। তবে সোশ‍্যাল মিডিয়ায় কখনো নিন্দুকদের বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠতে দেখা যায়নি তাঁকে। স্টার কিড হয়েও স্ট্রাগলের কথা বলেও একবার তুমুল ট্রোলড হয়েছিলেন অনন‍্যা।

সম্পর্কিত খবর