টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতি

ফিসচুলাই রক্ষাকবচ! আজও CBI হাজিরা এড়াতে পারেন অনুব্রত মণ্ডল

বাংলাহান্ট ডেস্ক : আবারও সেই একই গল্প। আবারও ইডি (ED) অথবা সিবিআই-এর (CBI) জেরা এড়াতে সমানে আনা হচ্ছে অসুস্থতার দোহাই। আজ বুধবার বেলা ১১টায় নিজাম প্যালেসে হাজির হওয়ার কথা অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal)। কিন্তু পরিস্থিতি বলছে, আজও সম্ভবত হাজিরা এড়িয়েই যাবেন কেষ্ট। এই বিষয়ে ভাইরাল হয়েছে একটি অডিও ক্লিপ।

ওই অডিও ক্লিপ থেকে জানা যাচ্ছে, চিকিত্‍সক চন্দ্রনাথ অধিকারী মঙ্গলবার অনুব্রতকে দেখতে গিয়েছিলেন। সেই চন্দ্রনাথের সঙ্গে বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের সুপার বুদ্ধদেব মুর্মুর ফোনে কথা হয়। সেই বিস্ফোরক কথোপকথনে অডিওই ভাইরাল হয়। জানা যাচ্ছে, ওই সুপারের নির্দেশেই অনুব্রতর বাড়িতে গিয়েছিলেন চিকিত্‍সকদের দল। সেখানে সরকারি প্যাড নয়, বরং সাদা কাগজেই প্রেসক্রিপশন লেখার নির্দেশ দেওয়া হয়। যদিও এই অডিওর সত্যতা যাচাই করেনি সংবাদমাধ্যম।

সিবিআই-এর ডাক পেয়েই সোমবার এসএসকেএম হাসপাতালে ছোটেন অনুব্রত। কিন্তু সেখানে ভর্তি হওয়ার সুযোগ হয়নি তাঁর। তারপর মঙ্গলবার সকালেই চিঠি ও ইমেল করে সিবিআই তলব করেছে অনুব্রতকে। বুধবার সকাল ১১টার মধ্যেই নিজাম প্যালেসে হাজির হতে হবে তাঁকে। সোমবার নিজাম প্যালেস না গিয়ে এসএসকেএম থেকে সোজা বোলপুর চলে যান কেষ্ট।

মঙ্গলবার বোলপুর মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসক দল যায় অনুব্রতর বাড়িতে। তাঁদের দাবি মলদ্বার ফুলে উঠেছে অনুব্রতর, পাইলসের সমস্যা গুরুতর আকার নিয়েছে। দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়।

অনুব্রতর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানা যাচ্ছে, আজও নিজাম প্যালেসে যাচ্ছেন না তিনি। অজুহাত সেই শারীরিক অসুস্থতা। শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে এবারও হাজিরা এড়াবেন অনুব্রত। জানা যাচ্ছে, কেষ্টর আইনজীবীরা আবারও সময় চেয়ে ইমেল করতে পারেন সিবিআই-কে। তবে ভাইরাল হওয়া ওই বিস্ফোরক অডিয়ো ক্লিপ একাধিক প্রশ্ন তুলে দিয়েছে অনুব্রতর শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে।

জানা যাচ্ছে, অনুব্রতর বাড়িতে মঙ্গলবার যে চিকিৎসক যান, তিনি সরকারি প্যাডে নয় বরং সাদা কাগজে প্রেসক্রিপশন লিখে আসেন। বোলপুরের চিকিৎসকরা জানান একাধিক সমস্যায় ভুগছেন অনুব্রত। শ্বাসকষ্ট, মানসিক ক্লান্তি, পাইলস, ফিসচুলা, পুরনো সমস্যাগুলোই আবার নতুন করে জেগে উঠেছে অনুব্রতর শরীরে। অনুব্রত মণ্ডলকে সিটজ় বাথেরও পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

তবে এসএসকেএমের মেডিক্যাল বোর্ড অনুব্রতর মধ্যে এমন কিছু সমস্যা দেখেননি, যার জন্য তাঁর বিশেষ বিশ্রামের প্রয়োজন রয়েছে। গরুপাচার কাণ্ডে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। আর যে কোনও মূল্যেই সেই হাজিরা এড়াতে চান অনুব্রত। সুবিধা হয়নি এসএসকেএম-এ, তাই বোলপুরে আবারও চেকআপ। সিবিআই কে এড়াতে আর কী কী পথ নেবেন কেষ্ট? আর সিবিআই-ই বা কতদিন এসব অজুহাত শুনে চোখ বন্ধ করে বসে থাকবে সেটাই এখন দেখার।

Related Articles