টাইমলাইনপশ্চিমবঙ্গরাজনীতিখেলা

‘বাড়ির দেওয়ালে মমতার ছবি ঝোলাও’, সন্তোষ ট্রফিতে হারের পর ফুটবলারদের পরামর্শ ক্রীড়ামন্ত্রীর

বাংলাহান্ট ডেস্ক : সন্তোষ ট্রফি একটুর জন্য হাতছাড়া হয়েছে বাংলায়। টাই-ব্রেকারে কেরলের কাছে হারের পর খালি হাতেই ফিরতে হয়েছে সবাইকে। শুক্রবার বাংলার এই ফুটবল দলকেই সংবর্ধনা দেয় ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। সেখানে হাজির হয়ে বাংলার ফুটবলারদের জেদ ধরে রাখার মন্ত্র দিলেন ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

এদিন অরূপ বিশ্বাস তরুণ ফুটবলারদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন, ‘আমরা যারা মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে এসেছি, আমরা সোনার চামচ মুখে নিয়ে আসিনি। আমাদের লক্ষ্য আর জেদটাই বড় করতে হবে। আর সেটা যদি কাউকে দেখে শিখতে হয়, একজনের ছবি বাড়িতে লাগিয়ে রাখবে, তাঁর নাম মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টালির চালে জন্মে জীবনে লড়াই করে, কর্পোরেশন স্কুলে পড়ে আজকে কোন জায়গায় পৌঁছেছেন।’

এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও বলেন, ‘যখন মানুষ ভাবল বেরোতে পারবেন না রাস্তায়। তখন এক পা নিয়ে ২৪০টা মিটিং করে… কোন রাজনৈতিক দলের হয়ে আমি বলছি না। কিন্তু তাঁর পরিশ্রম, তাঁর জেদ সেটা আমাদের কাছে শিক্ষনীয়, সেটা তোমাদের করতে হবে।’ মঞ্চে উপস্থিত প্রাক্তন ফুটবলার প্রশান্ত বন্দ্যোপাধ্যায়, বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যদের দেখিয়ে মন্ত্রীমশাই আরও বলেন, ‘এঁদের সময় সুযোগ ছিল না। তোমাদের অনেক লোভনীয় অফার আছে। সেগুলিকে কাজে লাগাও।’

কার্যতই রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রীর এহেন বক্তব্যে শোরগোল রাজ্যজুড়েই। নিজের বক্তব্যের কোনও সাফাইই তিনি না দিলেও ব্যাপারটিকে নিয়ে তৃণমূলকে একহাত নিতে ছাড়েনি বিরোধী শিবির। সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘ফুটবলাররা যেন একেবারেই ক্রীড়ামন্ত্রীর পরামর্শ না শোনেন। তাহলে সর্বনাশ হবে। মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের সব লোক এখন ময়দানে থাবা বসাতে চাইছেন। আইএফএ থেকে ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান, হকি, বক্সিং সব জায়গায় বন্দ্যোপাধ্যায় বাড়ির লোক ঢুকছে। ময়দানের মমতায়ন করে ফেলতে চাইছে তৃণমূল। তাতেও থামছে না। এখন ফুটবলারদের বাড়ির দেওয়ালেও মাননীয়ার ছবি ঝোলাতে চাইছে। কী নির্লজ্জ এরা!’ সব মিলিয়ে ময়দানে যে বেশ চাঞ্চল্যই ছড়িয়েছে তা বলাই বাহুল্য।

Related Articles

Back to top button